• দুপুর ২:১৪ মিনিট রবিবার
  • ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : হেমন্তকাল
  • ৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সোনারগাঁয়ে অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার সোনারগাঁয়ে অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার নৌকার প্রার্থীর চোখের পানি না শুকাতেই স্বতন্ত্র প্রার্থীকে আওয়ামীলীগে যোগদান ‘মা’ কম্পিউটার ইনষ্টিটিউট অব টেকনোলজি-এর সনদ বিতরণ সোনারগাঁয়ে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টা অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি দারিদ্র বিমোচনে কাজ করছে বসুন্ধরা. ইঞ্জি: মাসুম বন্দরে একসাথে তিন বান্ধবী নিখোঁজ কমপ্লেক্সে ঢুকে পড়া ছাগলে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের ভুড়িভোজ, মামলা স্ত্রী’র অন্তরঙ্গ ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে যুবক গ্রেফতার আইভীকেই নৌকা দিলেন প্রধানমন্ত্রী জাকেরপাটির চেয়ারম্যানের দোয়া নিলেন মেয়র আইভি যেসব খাবার খেলে নতুন চুল গজায় সাদিপুরে ভোট গণনায় কারচুপির অভিযোগ কাউন্সিলর হত্যার প্রধান আসামির জানাজা ছাড়াই দাফন সোনারগাঁয়ে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তিন বাড়িতে ডাকাতি সোনারগাঁও প্রেস ক্লাবের মনোনয়নপত্র বিতরন সোনারগাঁয়ে মাদকসহ আটক ২, পিকআপ জব্দ রূপগঞ্জ আ.লীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলা, গুলিবিদ্ধ ৬ ভোট পূর্ণগননার দাবি ইউপি সদস্যের নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন ১৬ জানুয়ারী
মেঘনা ভরাট করে বালু ব্যবসা, জব্দকৃত বালু ৭ লক্ষাধিক টাকায় নিলামে বিক্রি

মেঘনা ভরাট করে বালু ব্যবসা, জব্দকৃত বালু ৭ লক্ষাধিক টাকায় নিলামে বিক্রি

Logo


নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকমঃ  সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর ইউনিয়নের মেঘনা লঞ্চঘাট এলাকায় মেঘনা নদী ও সরকারি জায়গা দখল করে বালু ব্যবসা বন্ধে অভিযান চালিয়ে বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ। ৪ মাস পূর্বে মেঘনা নদীর তীরে বিআইডব্লিউটিএ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করলেও ক্ষমতাসীন দলের একটি গ্রুপ গত কিছুদিন ধরে মেঘনা নদীর তীর ভরাট করে অবৈধভাবে বালু ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। রবিবার সকালে নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে ও বিআইডাব্লিউটিএর নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক শেখ মাসুদ কামালের তত্বাবধানে পরিচালিত অভিযানে উপস্থিত ছিলেন উপ-পরিচালক মোঃ শহিদুল্লাহসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ। এসময় জব্দকৃত বিপুল পরিমাণ বালু ৭ লাখ ২০ হাজার টাকায় নিলামে বিক্রি করা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র নারায়ণগঞ্জ বন্দরের যুগ্ম-পরিচালক মাসুদ কামাল বলেন, মেঘনা নদীর দুই তীরে গত মে মাসে টানা ৬ দিন উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। সেসময় অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠানের দখলকৃত অংশ উচ্ছেদ করা হয়েছিল এবং ভরাটকৃত বালু নিলামে বিক্রি করা হয়েছিল। শীঘ্রই মেঘনা নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আবারো অভিযান শুরু হবে। নদী দখলকারীরা যত প্রভাবশালীই হোক না কেন তাদের কোন ছাড় নেই।

উল্লেখ্য চলতি বছরের ২০ মে থেকে ২৯ মে পর্যন্ত মেঘনা নদীর তীরে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে ৬ দিন ব্যপী অভিযান পরিচালনা করে বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ। এসময় মেঘনা নদীর তীর ভরাট ও দখল করায় মেঘনা গ্রুপ, আমান গ্রুপ, অরিয়ন গ্রুপ, বসুন্ধরা গ্রুপ, ইউনিক গ্রুপ, আল মোস্তফা গ্রুপের পলিমার ইন্ড্রাস্ট্রিজ, খাঁন ব্রাদার্স ডকইয়ার্ড, আব্দুল মোনেম গ্রুপ, কনকর্ড গ্রুপসহ বেশ কয়েকটি ভরাট ও দখলকৃত অংশ অবমুক্তে অভিযান চালানো হয়। এসময় কয়েকটি পাকা বহুতল ভবন, কয়েকটি ডকইয়ার্ডের বর্ধিত অংশসহ শতাধিক পাকা ও কাঁচা স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। এছাড়া জব্দকৃত বালু ও অন্যান্য সামগ্রী নিলামে প্রায় ১ কোটি ৫৪ লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়। এসময় মেঘনা নদীর শাখা নদী ড্রেজার দিয়ে ভরাটের চেষ্টাকালে কমপক্ষে ১৭টি ড্রেজার ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছিল।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution