• রাত ১:৩৯ মিনিট বুধবার
  • ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : হেমন্তকাল
  • ৭ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রেলপথে বাড়তে যাচ্ছে ট্রেনের সংখ্যা আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি হবে নিয়ামক শক্তি, লিয়াকত হোসেন খোকা এমপি বারদি জাতীয়পার্টির কর্মী সভা অনুষ্ঠিত ১১৯ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা আজ কি চমক দেখাবে পারবে ব্রাজিল? মাদক মামলায় ফেঁসে যাচ্ছে না.গঞ্জের ৪ পুলিশ সদস্য ইউনিয়ন শ্রমিক দলের সেক্রেটারী সহ বিএনপি ৪ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার দলিল লিখক মোশারফ এর হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন সোনারগাঁয়ে এক সঙ্গে তিন পুত্র সন্তানের জম্ম প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান মানোন্নয়নের লক্ষ্যে সোনারগাঁয়ে শিক্ষকদের মাসিক সমন্বয় সভা নদী খনন করে নৌ-জেটি নির্মাণ ও আনন্দবাজারের নিম্ন অংশ ভরাটে চেয়ারম্যানের অভিনন্দন সোনারগাঁয়ে চেয়ারম্যানের পুত্রসহ দুইজন ইয়াবাসহ গ্রেফতার কাঁচপুর থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধ নিখোঁজ সোনারগাঁয়ে বিশেষ অভিযানে আরো ৪ জন গ্রেপ্তার সাংবাদিক পরিমল বিশ্বাস এর মায়ের পরলোক গমন নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারে থানা বিএনপির নিন্দা সোনারগাঁয়ে ৬ বিএনপির নেতাকর্মী গ্রেপ্তার বিজয় দিবস উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রস্তুতি সভা বন্দরে মাছ ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা ॥ আটক-২ নেতাকর্মীদের বাড়িতে পুলিশী তল্লাসীর নিন্দা স্বপনের
প্রকাশ্যে হত্যা মামলার আসামির চলাচল, নেই পুলিশের তদারকি

প্রকাশ্যে হত্যা মামলার আসামির চলাচল, নেই পুলিশের তদারকি

Logo


নজরুল ইসলাম শুভ নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকমঃ সোনারগাঁ উপজেলার টেমদী গ্রামে হত্যা মামলাসহ পাঁচ মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিরা এলাকায় পুলিশের নাকের ডগায় ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। এতে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে এলাকাবাসীর মধ্যে।

বৃহস্পতিবার (২১নভেম্বর) নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীরা।

জানা যায়, ওই গ্রামের বাসিন্দা ব্যবসায়ী মাহবুব মিয়াকে গত বছরে ৩১ ডিসেম্বর পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে একই এলাকার এসহাক মিয়া ও তার সহযোগীরা। পরে হত্যা মামলার আসামিরা বাদী পক্ষের আত্মীয় মামুন মিয়, ডা. হালিম মিয়া ও সফিউল্লার ঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

পরে সন্ত্রাসীরা হাদু মিয়া, আলম মিয়া, মামুন হোসেন, মনির হোসেন, আল-আমিনকে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করেন। পৃথক ঘটনায় থানায় চারটি মামলা দায়ের করার পর আসামিদের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করা হয়। এরপর আসামি ইসহাক মিয়া, হারুন মিয়া, জাকির হোসেন, কবির হোসেন, আল আমিন, আলমগীর হোসেন, রবিন হোসেন, আবু হানিফ, মোমেন মিয়া, মাছুম মিয়া, গিয়াস উদ্দিন, আমিন উদ্দিনসহ বিভিন্ন মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিরা গত ১৫ দিন ধরে এলাকায় প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না।

এ দিকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য মামলার বাদীদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে আসামিরা। এতে বাদী পক্ষের লোকদের মধ্যে আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।

মামলার বাদী তাহসীন মিয়া বলেন, এসহাক মিয়ার ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে হত্যা, অগ্নিসংযোগ, বাড়ি-ঘর ভাংচুর, লুটপাট ও মারামারিসহ ৫টি মামলায় ওয়ারেন্ট রয়েছে। তিনি জানান উচ্চ আদালত থেকে জামিনে আসলেও পরবর্তীকালে নিম্ন আদালতে হাজির না হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করে আদালত।

তিনি আরও বলেন, মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট থাকার পরেও তারা পুলিশের নাকের ডগায় কীভাবে প্রকাশ্যে ঘোরা-ফেরা করছে। এমনকি আসামিরা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আমাদেরকে হুমকি দিচ্ছে। এতে আমরা নিরাপত্তাহীনতা ও আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এসহাক মিয়া, হারুন মিয়া ও বজলু মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাদের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, আসামি ইসহাক মিয়াসহ বাকি আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় কোনো ওয়ারেন্ট নেই। যদি থাকে খুব শিগগিরই আসামিদের গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হবে। আমার জানা মতে মামলাটি ডিবির হাতে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution