• বিকাল ৪:৫৪ মিনিট মঙ্গলবার
  • ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : হেমন্তকাল
  • ২০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সু চির ৩ প্রার্থীকে অপহরণ টটেনহ্যামের বিপক্ষে ওয়েস্ট হ্যামের অবিশ্বাস্য কামব্যাক পেঁপের বিশেষ ৮ গুণ সোনারগাঁয়ে ৭ জনের নমুনায় কোন করোনা রোগী সনাক্ত হয়নি শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেলেন সোনারগাঁয়ের ফিরোজ হোসাইন সোনারগাঁয়ের মেঘনা নদী থেকে ২০ হাজার মিটার জালজব্দ সোনারগাঁয়ে এবার ৩৩টি পূজামন্ডবে অনুষ্ঠিত হবে শারদীয় দুর্গাৎসব সোনারগাঁয়ে এখনো কমেনি আলুর দাম সোনারগাঁয়ে নতুন কোন করোনা আক্রান্ত নেই, সুস্থ ৪, মোট সুস্থ ৫৮১ সোনারগাঁয়ে ৫০ হাজার মিটার কারেন্টজাল জব্দ দীপক কুমার বনিক দীপুর উদ্যোগে শেখ রাসেলের জম্মদিন পালন জাতীয়পার্টির সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় চেয়ারম্যান রউফকে ফুলের শুভেচ্ছা যথা সময়ে দলমত নির্বিশেষে সুষ্টু ও নিরপেক্ষ পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে..পুলিশ সুপার সোনারগাঁয়ে দলিল লিখক নির্বাচনে খলিল-শহীদ প্যানেল বিজয়ী ওসমান গনিকে নৌকা প্রতিক দেয়ার দাবিতে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন সোনারগাঁয়ে ৬ জেলেকে কারাদন্ড আশরাফুল মাকসুদের নেতৃত্বে জাতীয়পার্টির সম্মেলনে যোগদান সোনারগাঁ জাতীয়পার্টির আংশিক কমিটি ঘোষনা পৌরসভা নির্বাচনে ডালিয়া লিয়াকতকে নির্বাচিত করুন. জিএম কাদের সোনারগাঁয়ে দুই ছিনতাইকারী আটক
উপজেলা প্রাণী হাসপাতালের ভুল চিকিৎসায় মরছে গরু

উপজেলা প্রাণী হাসপাতালের ভুল চিকিৎসায় মরছে গরু

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: সোনারগাঁ উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগে ভাল মানের পশু ডাক্তার না থাকায় মাঠ কর্মী পশু চিকিৎসা করানোর ফলে একে একে ভূল চিকিৎসা সাধারণ খামারিদের পশুর মৃত্যু হচ্ছে। উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ নির্বিকায় কোন সমাধান নেই।

সোনারগাঁয়ে প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের অবহেলায় এবং মাঠকর্মী দিয়ে পশুর অপচিকিৎসায় একের পর এক পশু মারা গিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন খামারিরা।

গত কয়েকদিনে সোনারগাঁ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের কয়েকজন উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার টাকা চুক্তির বিনিময়ে ভূল চিকিৎসা দেওয়ার ফলে বহু গরু, ছাগল মারা গিয়েছে। এ অবস্থায় খামারিরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ হাবীরের দাবী উপজেলায় স্থায়ী ভ্যাটেনারী সার্জন না থাকায় একে পর এক অপ চিকিৎসা হচ্ছে। ভ্যাটেনারী সার্জনের পদ থাকলেও তিনি অন্যত্র বদলি হওয়ার কারনে এ পদে এখনও কেউ যোগদান করেনি।

জানা যায়, গত(১৬সেপ্টেম্বর) বুধবার সোনারগাঁ পৌরসভার গোয়ালদী এলাকায় মোকাররম হোসেন নামের এক খামারীর প্রায় দুই লাখ টাকার মূল্যের এক গর্ভবতী গাভী সোনারগাঁ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা  মোঃ কামরুল হাসানের ভূল চিকিৎসায় মারা যায়। তার খামারে আরো ২০টি ছোট বড় গরু রয়েছে। গোয়ালদী এলাকায় মোকাররম হোসেন নামের এক খামারী জানান, তিনি কৃষি ব্যাংক থেকে সাড়ে ১০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে তিনি এ খামার গড়ে তোলেন। এ খামারের সবচেয়ে দামী গরুটি ভূলচিকিৎসার কারনে মারা যায়।

তিনি আরো জানান, গরুটি অসুস্থ হলে প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে ফোন করে পরামর্শ চাইলে উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা  মোঃ কামরুল হাসান ১৫ হাজার টাকা বিনিময়ে গরুটি সুস্থ করে দেওয়ার কথা বলে বাড়িতে গিয়ে গরুকে ইনজেকশন পুশ করলে ৩ ঘন্টা পর গরুটি মারা যায়।

অপর দিকে গত মঙ্গলবার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের উলুকান্দি গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের স্ত্রী খামারি জাহানারা বেগম জানান, তিনি জানান ওই গরুটা থেকে প্রতিদিন প্রায় ৮কেজি দুধ দোহন করতেন। এ গরুটা সকাল বিকেল দুধ দোহন করার ফলে গরুর শরীর থেকে ক্যালসিয়াম কমে যাওয়ার অজুহাতে কামরুল হাসান বাড়িতে গিয়ে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে চুক্তি করে দুটি ইনজেকশন পুশ করে। ইনজেকশন পুশ করার ২ঘন্টার মাথায় গরুর শুয়ে পড়ে। পরবর্তীতে ৫শ টাকা নিয়ে তিনি আরেক উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা তাবারক হোসেন ভূইয়াকে এ গরুর দায়িত্ব দিয়ে সটকে পড়েন। তাবারক হোসেন দায়িত্ব নিয়ে পুনরায় ওই টাকায় চুক্তি করে আরো ২টি ইনজেকশন পুশ করেন। পরে গরুটি মারা যায়। গরুটি মারা যাওয়ায় ওই খামারির পরিবার নি:স্ব হয়ে পড়েছেন।

অপরদিকে হামছাদী এলাকায় গত জুলাই মাসে মফিজ উদ্দিনের গরু, সোনারগাঁ পৌরসভার সাহাপুর এলাকায় উন্নত জাতের ৪টি ছাগল, গোবিন্দপুর এলাকায় কাউসার মিয়ার একটি গরু ভূল চিকিৎসার মারা যায়।

অভিযুক্ত সোনারগাঁ উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মোঃ কামরুল হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চুক্তির বিনিময়ে চিকিৎসার কথা স্বীকার করেন। তবে চিকিৎসা দেওয়া তার দায়িত্ব। গরু মরে গেলে তার কি করার আছে বলে তিনি সরল সহজ দেন।তিনি জানান বাচা মরার বিষয়টি সম্পূর্ণ আল্লাহর হাতে।

সোনারগাঁ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ হাবীব বলেন, চুক্তির বিনিময়ে চিকিৎসা করার কোন নিয়ম নেই। ভ্যাটেনারী সার্জনের পদ থাকলেও এ পদে এখনও কেউ যোগদান করেনি। ফলে উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাদের দিয়ে এ চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হচ্ছে। ভ্যাটেনারী সার্জন প্রতিটি ইউনিয়নে একজন করে দরকার। শুধুমাত্র উপজেলা একটি পদ রয়েছে। তারপরও এ পদটি এখন শূন্য রয়েছে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution