• রাত ১১:২৪ মিনিট শুক্রবার
  • ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : হেমন্তকাল
  • ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং
এই মাত্র পাওয়া খবর :
ঝাউচর মাদ্রাসায় কৃতি শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরন ২৫ টাকার পেয়াজ কেন ২৫০ টাকা ? ব্যবসায়ীর বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় থানায় মামলা সোনারগাঁয়ে ১৪০০ পিস ইয়াবাসহ কামাল আটক সোনারগাঁয়ে ২মাস ধরে গৃহবধু নিখোঁজ, থানায় অভিযোগ সংস্কারের অভাবে হোসেনপুর সড়কের বেহাল দশা বারদীতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান জেলেদের খাদ্য সহায়তার চাল পেতে সাড়ে ৫ ঘন্টা অপেক্ষা সোনারগাঁ সেন্ট্রাল হাসপাতালের যাত্রা শুরু নিয়ম ভেঙ্গে ফরম ফিলাপের চারগুণ টাকা আদায় করছে এস আর স্কুল সভাপতির যোগ্যতা স্নাতক করায় পদ হারাতে পারে সোনারগাঁয়ে অনেক নেতা সোনারগাঁয়ে দুই নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক নাঃগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগে স্থান পেলেন সোনারগাঁয়ের সামসুজ্জামান ও দুলাল ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের দোষলেন মালিকরা দ্বীন ইসলাম হত্যার সঙ্গে জড়িত রাজুকে গনপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ ২ সন্তানের জননীকে ধর্ষণের ঘটনায় মামলা সোনারগাঁয়ের আওলাদ হোসেনের ১৪ বছরের কারাদন্ড কায়সার বাদে যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বদলী
লেখক হাজী মহসিনকে হেয় করার চেষ্টা, থানায় অভিযোগ

লেখক হাজী মহসিনকে হেয় করার চেষ্টা, থানায় অভিযোগ

নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকম:

সোনারগাঁ উপজেলার তরুন লেখক হাজী মোহাম্মদ মহসিনকে সামাজিক ভাবে হেয় করতে উঠে পড়ে লেগেছে সমাজের কিছু সমাজচ্যুত লোকজন। এ ঘটনায় হাজী মোহাম্মদ মহসিন বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন।

ডায়েরীতে হাজী মোহাম্মদ মহসিন উল্লেখ করেন, তিনি যুগান্তরসহ বিভিন্ন পত্রিকায় লেখালেখি করেন। গত ২৯ জুন বিকাল ৫টার দিকে মজহমপুর স্কুল ছাত্র পরিষদ নামের একটি ফেইসবুক আইডি থেকে কে বা কাহারা তার বিরুদ্ধে মানহানীর কর বিভিন্ন অশ্লালীন কুরুচিপূর্ন কথা লিখে পোষ্ট করেন। এতে করে সামাজে তার মানহানি ঘটেছে।যা মিথ্যা বানোয়াট বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। এ ঘটনায় হাজী মোহাম্মদ মহসিন সোনারগাঁ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন।

ফেইসবুকে যা লেখা হয়েছে তা হুবহুব তুলে ধরা হলো:

সোনারগাঁওয়ের উদ্ভবগঞ্জ এলাকার হাজী মোহাসিন নামের এক ঔষধের দোকানদার নিজেকে যুগান্তর পত্রিকার চিঠিপত্র কলামে প্রকৃতি বিষয়ক লেখক ও গবেষক দাবী করেছেন। তিনি প্রকৃতি বিষয়ে লেখালেখি করেন ভালো কথা। তিনি কি বিষয়ে গবেষণা করেন এ বিষয়ে কারো জানা থাকলে জানাবেন। আসলে তিনি গুগল থেকে লেখা নিয়ে এদিক সেদিক করে লেখে পত্রিকায় পাঠান। এটি আবার পত্রিকায় ঘটা করে ছাপিয়ে নিজেকে বড় লেখক দাবী করেন। তিনি আসলে কাট কপি লেখক। কাট কপি লেখক হয়ে তিনি নিজেকে কিভাবে গবেষক দাবী করেন। আমার জানা মতে সোনারগাঁয়ে তেমন গবেষক পাওয়া যায়নি। তিনি আবার কোন গবেষক।

হাজী মোহাম্মদ মহাসিনের লেখা দুটি ফিচার নিম্মে দেওয়া হলো:

এই নিউজটি শেয়ার করুন...

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution