• রাত ১০:০৮ মিনিট সোমবার
  • ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : গ্রীষ্মকাল
  • ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সোনারগাঁ থানার ওসি রফিকুল ইসলামকে অবসরে পাঠাল সরকার ইফতারীর আগে মুক্তিযোদ্ধার ছেলেকে কুপিয়ে জখম করলো হাবু ডাকাত জাপা সভাপতি ও চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ’কে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ উপজেলার জাতীয়পার্টির সভাপতি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ আটক সোনারগাঁয়ে আরো ১৫ জনের দেহে করোনা সনাক্ত ৫ম বারেও করোনা পজেটিভ, সোনারগাঁবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন মান্নান মামুনুল ইস্যুতে আটক কাউন্সিলর তপন ২ দিনের রিমান্ডে ফেলা যাওয়া টাকা ও টুপির মালিককে খুঁজছে ফার্মেসী মালিক সোনারগাঁয়ে ভেজাল খাদ্য তৈরির দায়ে গ্রেফতার ১ রোজা রেখে চুল ও নখ কাটা যাবে? না.গঞ্জের সেই সিংহামের হাতে বন্দি হলেন মামুনুল রোযাও কমছেনা তরমুজ ও আনারসের দাম সোনারগাঁও পৌরসভার কাউন্সিলর তপন গ্রেফতার লক ডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশ সোনারগাঁয়ে করোনা আক্রান্ত ১৪, মৃত্যু ১ সুস্থ ৪০ সোনারগাঁয়ে করোনা আক্রান্ত ১৪, মৃত্যু ১ সুস্থ ৪০ চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহাগ রনি’র উদ্যোগে মাস্ক ও ইফতারি বিতরন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযুদ্ধা ওবায়দুল হকের দাফন সোনারগাঁয়ে একদিনে করোনায় মৃত্যু ৩, আক্রান্ত ১১ সনমান্দিতে দুই ডাকাত আটক
পৌরবাসীর সঙ্গে ৯ কাউন্সিলরের বেঈমানী, শাস্তি বিএনপির কাউন্সিলরের!

পৌরবাসীর সঙ্গে ৯ কাউন্সিলরের বেঈমানী, শাস্তি বিএনপির কাউন্সিলরের!

Logo


নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকমঃ

সোনারগাঁও পৌরবাসীর সঙ্গে যখন ৯ জন কাউন্সিলর বেঈমানী করলেন তখন পৌরবাসী সহ আরও তিনটি ইউনিয়নবাসীকে বাঁচাতে মাঠে নেমেছেন এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা। সোনারগাঁও পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের টিপুরদি এলাকায় অবস্থিত চৈতি কিম্পোজিটের বিষাক্ত বর্জ্য পৌরসভার খাল বিল নদী নালায় পুকুরে ছেড়ে দেয়ার অনুমতি দেয় সোনারগাঁও পৌরসভার মেয়র সাদেকুর রহমান ভুইয়া। কিন্তু মেয়র বিষয়টি অস্বীকার করে দাবি করেছেন, পৌরসভার একজন কাউন্সিলর আরও ৮ জন কাউন্সিলর ও তার স্বাক্ষর ভুল বুঝিয়ে জালিয়াতি করে চৈতি কম্পোজিটকে অনুমতি দেয়। ওই ঘটনায় তিনি সকল কাউন্সিলরদের ছাড় দিয়ে শাস্তি দিয়েছেন অভিযুক্ত বিএনপির কাউন্সিলর মোতালেব মিয়াকে।

চৈতি কম্পোজিটের বিষাক্ত ক্যামিকেলযুক্ত পানি সোনারগাঁও পৌরসভা সহ আরও তিনটি ইউনিয়নের খাল বিল পুকুর হয়ে নদীতে যাচ্ছে। যা একটি সুয়ারেজের মাধ্যমে প্রবাহিত হয়ে আসছে। বিষাক্ত এ বর্জ্য সহ পানি খাল বিল পুকুরে যাচ্ছে যা ওই পানিতে হাত মুখ ধৌত করলেও চর্মরোগ সহ নানা রোগ ব্যধি হবে। সেই সঙ্গে এই পানি পান করলেও মরণব্যাধি রোগ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ পানি ব্যবহারে পৌরসভার মানুষের মহামারি আকারে রোগ ছড়াবে। কারন খাল বিলের পানিতে মানুষ এখনও গোসল করছেন। রান্না বান্নার কাজেও ব্যবহার করছেন। পৌরবাসীর সঙ্গে বৈঈমানী করে ভুয়া কাগজে স্বাক্ষর করে পৌরসভাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করলেন জনপ্রতিনিধিরা। চৈতি কম্পোজিটের টাকার কাছে পৌরবাসীর জীবন নিয়ে ছিনিমিলি খেললেন পৌরসভার ৯জন কাউন্সিলর। যাদের মধ্যে রহস্যজনকভাবে শাস্তি দেয়া হয়েছে মাত্র একজন কাউন্সিলরকে।

এলাকাবাসী বিশ্বাস করে তাদের আমানত মুল্যবান ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছিলেন কাউন্সিলরদের। কিন্তু সেই নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা পৌরবাসীর জীবনকে ঝুকির মধ্যে ফেলে দিয়ে চৈতির কাছে বিক্রি হয়ে গেলেন। কিন্তু মেয়র একজনকে শাস্তি দিয়ে বাকিদের বাঁচিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছেন বলেও এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এদিকে মেয়র সাদেকুর রহমানের দাবি, তার কাছ থেকে মিথ্যা প্রকল্প দেখিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধ কাজ সম্পাদনের উদ্দেশ্যে মেয়রের স্বাক্ষর নেন বেশকজন কাউন্সিলর। ওই ঘটনায় শুধুমাত্র একজন কাউন্সিলর মোতালেব মিয়াকে শাস্তিস্বরুপ তার প্রাপ্য সকল সরকারি সুযোগ সুবিধা বন্ধ করে দিয়েছে পৌরসভা। মোতালেব মিয়া পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি পদে রয়েছেন বলে জানা গেছে। এদিকে শুধুমাত্র একজনকে এমন শাস্তি দেয়া হলেও স্বাক্ষর দেয়া বাকি কাউন্সিলরদের ছাড় দেয়া হয়েছে রহস্যজনক কারনে। কারন পৌরবাসীর জীবন নিয়ে খেলা সকল কাউন্সিলরদের শাস্তি দেয়া উচিত বলে মনে করেন এলাকাবাসী।

জানাগেছে, সোনারগাঁও পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোতালেব মিয়ার পৌরসভা থেকে প্রাপ্য সকল প্রকার সরকারী সুযোগ-সুবিধা বন্ধ করে দিয়েছে পৌরসভা। কাউন্সিলর মোতালেব মিয়ার বিরুদ্ধে উত্থাপিত দূর্নীতি প্রমান পাওয়ায় প্রায় একমাস আগেই এ পদক্ষেপ নেয়া হলেও সহস্যজনক কারনে এতদিন গোপন রাখে সোনারগাঁও পৌরসভা। এলাকাবাসীকে বাঁচাতে যখন স্থানীয় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা মাঠে নামেন তখন বিষয়টি মেয়র ফাঁস করলেন। যদিও অবৈধভাবে চৈতিকে অনুমতি পত্রে স্বাক্ষরকারীদের মধ্যে একজনকে শাস্তি দেয়া হলো।

সোনারগাঁও পৌর মেয়র সাদেকুর রহমান স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে বলেন, সোনারগাঁও পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা মোতালেব মিয়া আমাকে সহ পৌরসভার আরও ৮জন কাউন্সিলরকে একটি ড্রেন নির্মাণ করা হবে বলে পৌরসভার নিজস্ব প্যাডে ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু নাইম আহমেদ রিপন, ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দুলাল মিয়া, ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহজালাল মিয়া, ৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম, ৮নং ওয়ার্ডের ফারুক আহমেদ তপন, ৯নং ওয়ার্ডের মনিরুজ্জামান মধু, মহিলা কাউন্সিলর পারভিন আক্তার ও রিতা আক্তারের স্বাক্ষর নেয়।

তিনি আরও বলেন, পরে জানতে পারি কাউন্সিলরদের স্বাক্ষর নেয়া সেই প্যাডটি মূলত চৈতী কম্পোজিট তাদের বর্জ্য বিভিন্ন খালে ফেলার জন্য স্বাক্ষর দেয়া কাউন্সিলররা লিখিত অনুমতি দিয়েছে এমন কাজে ব্যবহার করেছেন। মুলত মোতালেব আমাদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে জালিয়াতি করে আমাদের স্বাক্ষর নিয়ে তার স্বার্থ উদ্ধার করতে ব্যবহার করেছেন। তাই একজন কাউন্সিলর বা জনপ্রতিনিধি হিসেবে তিনি জনপ্রতিনিধির নীতি বহির্ভূত কাজ করায় সকল সরকারী সুযোগ-সুবিধা (বেতন, ভাতা, বোনাস ও কাউন্সিলরের বা জনপ্রতিনিধির নির্বাহী ক্ষমতা) বন্ধ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোতালেব মিয়া বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা।

অন্যদিকে চৈতি কম্পোজিটের বিষাক্ত পানি বর্জ্য সহ নিরসনের লক্ষ্যে স্থানীয় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা নিজেই ঘটনাস্থলে যান। সেখানে তিনি গিয়ে দেখেন গোপন সুয়ারেজের মাধ্যমে মাটির নিচ দিয়ে চৈতির বিষাক্ত পানি খালে ছেড়ে দিচ্ছে। যা খাল বিল পুকুর ছড়িয়ে নদীতে গিয়ে পড়ছে। পরের দিন আবারো এমপি নিজে গিয়ে ওই সুয়ারেজ বন্ধ করে দেন। এছাড়াও ঘটনাস্থলে গিয়েছেন সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীনুর ইসলামও। এখন নতুন করে চৈতি পৌরসভাকে ম্যানেজ করার চেষ্টা করছে। কিন্তু যারা পৌরবাসীর জীবন নিয়ে খেলছেন তাদের বিচার দাবি করছেন পৌরবাসী।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution