• সকাল ৬:২১ মিনিট রবিবার
  • ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : গ্রীষ্মকাল
  • ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
লক ডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশ সোনারগাঁয়ে করোনা আক্রান্ত ১৪, মৃত্যু ১ সুস্থ ৪০ সোনারগাঁয়ে করোনা আক্রান্ত ১৪, মৃত্যু ১ সুস্থ ৪০ চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহাগ রনি’র উদ্যোগে মাস্ক ও ইফতারি বিতরন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযুদ্ধা ওবায়দুল হকের দাফন সোনারগাঁয়ে একদিনে করোনায় মৃত্যু ৩, আক্রান্ত ১১ সনমান্দিতে দুই ডাকাত আটক বন্দরে চোরাই গার্মেন্ট পণ্য উদ্ধার, গ্রেপ্তার-২ আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে ইঞ্জিনিয়ার মাসুমের আর্থিক সহায়তা প্রদান কঠোর লকডাউনের ২য় দিনের জনজীবন স্বাভাবিক পিরোজপুরে ৪টি বসত ঘরে আগুন মাহে রমজান উপলক্ষে সনমান্দী ইউনিয়নে অসহায়দের মাঝে ত্রান বিতরণ সোনারগাঁয়ে ট্রাক চাপায় মামা-ভাগ্নে নিহত মৃত শিশুকে কবর দেওয়াকে কেন্দ্র করে শিশুর স্বজনদের বাড়ীতে হামলা রোজা ও পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আহবায়ক কমিটি সোনারগাঁয়ে চলছে ঢিলেঢালা লকডাউন সোনারগাঁয়ে করোনা আক্রান্ত নিম্নমূখী, ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ৭ এবারও করোনা গ্রাস করেছে পহেলা বৈশাখ তারাবিসহ সকল নামাযে ২০ জন অংশ নিতে পারবে রাস্ট্র বিরোধী কর্মকান্ডের অভিযোগে সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে গ্রেফতার
সোনারগাঁও জাদুঘরের কারুশিল্পীদের দোকান বরাদ্দে উচ্চ আদালতে রিট

সোনারগাঁও জাদুঘরের কারুশিল্পীদের দোকান বরাদ্দে উচ্চ আদালতে রিট

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: সোনারগাঁয়ে অবস্থিত বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের কারুপল্লীর দোকান বরাদ্দে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন দায়ের করা হয়েছে। গত সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর বেঞ্চে ১৩ জন কারুশিল্পীদের পক্ষে কারুশিল্পী সেলিনা আক্তার বাদী হয়ে এ পিটিশন দায়ের করেন। রিট পিটিশনে বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের সচিব, বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের পরিচালক ও রেজিস্ট্রেশন কর্মকর্তাকে বিবাদী করা হয়।

কারুশিল্পীরা জানান, বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের অভ্যান্তরে কারুশিল্পীদের কারুপন্য বিপননের জন্য ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ কারুপল্লী নামের এক মার্কেট স্থাপন করে। ওই মার্কেটে ৩৫টি দোকান ছিল। মার্কেটটি জরাজীর্ণ হওয়ার কারনে ২০০৮ সালে পুনরায় সংস্কার করে ৪৮টি দোকান তৈরি করে কারুশিল্পীদের বরাদ্দ দেন। এ ৪৮টি দোকান থেকে ২০ জন প্রকৃত কারুশিল্পী দোকান বরাদ্দ থেকে বঞ্চিত হন। এ দোকান বরাদ্দ না পেয়ে কারুশিল্পীরা ২০১৩ সালে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন। পরবর্তীতে ২০২০ সালের ৪ ফেব্রয়ারী রিটে কারুশিল্পীদের পক্ষে আদালত রায় প্রদান করেন। ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ ২০ জন কারুশিল্পীদের দোকান বরাদ্দ দিয়ে ২৮টি দোকান থেকে পুনরায় ১৩জন কারুশিল্পীর দোকান বরাদ্দ দিতে তালবাহানা শুরু করে। ফলে ১৩ জন কারুশিল্পীদের পক্ষে সেলিনা আক্তার বাদী হয়ে এ পিটিশন দায়ের করেন। উচ্চ আদালতে পিটিশন দায়ের করেন, সেলিনা আক্তার, মো. হাবিবুর রহমান ডালিম. সামসুন্নাহার, মো. রায়হান, মো. জাহাঙ্গির আলম, মনিরুজ্জামান মনির, আছমা বেগম, মো. হাবিবুর রহমান, রুবিনা আক্তার, মো. সালাউদ্দিন, মো. আনোয়ারুজ্জামান, নারগিস আক্তার ও মোহাম্মদ আলাউদ্দিন।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের কারুশিল্পী সেলিনা আক্তার বলেন, আমাদের ১৩জন কারুশিল্পীকে ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ দু’দফায় দোকান বরাদ্দ দিয়ে বাতিল করেছেন। বর্তমানে আমাদের বরাদ্দ দেই দিচ্ছি করে তালবাহানা করছেন। ফলে আমরা বিষয়টি মিমাংসার জন্য উচ্চ আদালতের ধারস্থ হয়েছি।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম বলেন, কারুশিল্পীদের রিটের কপি হাতে পেয়েছি। দোকান বরাদ্দ দেওয়ার জন্য একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। ইতোমধ্যে ২৭ জন কারুশিল্পীকে স্থানীয় সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতে প্রকৃত কারুশিল্পী যাচাই করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। বাকি দোকানগুলো প্রকৃত কারুশিল্পীদের মাঝে বন্টন করা হবে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution