• রাত ১১:৫৪ মিনিট রবিবার
  • ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বসন্তকাল
  • ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
পুলিশের এএসআই’য়ের বিরুদ্ধে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ উপজেলা মৎসজীবী লীগের কমিটি গঠন আগামীকাল সোমবার থেকে শুরু মাসব্যাপী সোনারগাঁও লোকজ মেলা সোনারগাঁ বঙ্গবন্ধু ক্রিকেট টুর্নামেন্টে বারদী বুলস ক্লাব বিজয়ী ঢাকার ছাত্রদলের সমাবেশে পুলিশের লাঠিচার্জে সোনারগাঁয়ের জনি আহত মোরগের ‘ছুরিকাঘাতে’ মালিকের মৃত্যু নাসিরকে নিয়ে এবার ঢালিউড নায়িকার ফেসবুক স্ট্যাটাস ভাইরাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার ঘোষণা স্বল্পদৈর্ঘ্য থ্রিলারে স্পর্শিয়া টিকা নিলেন প্রায় ৩০ লাখ মানুষ জাহানারা বললেন, ‘এখন আমরা ফিট’ রাস্তার কাজ সম্পন্ন করতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন এমপিএল ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্ধোধন সনমান্দিতে আমিনুল ইসলাম আমান ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সোনারগাঁয়ে আ.লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা সোনারগাঁও জাদুঘরের কারুশিল্পীদের দোকান বরাদ্দে উচ্চ আদালতে রিট ২ কোটি টাকা ব্যয়ে ওয়াটার সাপ্লাই পাইপের উদ্ধোধন সোনারগাঁয়ে ৭ হাজার ৭ শত পিস ইয়াবাসহ আটক ৩ ভোটারদের স্মার্ট কার্ড তুলে দিলেন চেয়ারম্যান শিপলু মাসব্যাপী লোকজ ও মেলা নিয়ে মত বিনিময় সভা
পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে শিমলা

পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে শিমলা

Logo


মানালি থেকে রাতের বাসে শিমলা। রাত ১০টার বাস যখন ছাড়লো, তখন ভেবেছিলাম ভোরে পৌঁছাবো। কিন্তু ৪টা না বাজতেই বাস নামিয়ে দিলো শিমলা বাসস্ট্যান্ডে। গুগল ম্যাপে দেখলাম বুকিং দেওয়া হোটেল বাসস্ট্যান্ড থেকে বেশ দূরে।

ভোর রাতে অনেক হোটেল ঘুরে এক ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে বাসস্ট্যান্ডের কাছেই হোটেল পেলাম। সাথে ট্যাক্সিতে সারাদিন ঘোরার প্যাকেজ। হোটেলে গিয়ে ফ্রেস হয়ে একটু বিশ্রাম নিয়েই বেরিয়ে পড়লাম ঘুরতে। ট্যাক্সি ছুঁটে চলছে কুফরির উদ্দেশে।সুত্র: জাগো নিউজ

শিমলার শীত তখনো কাটেনি। পাহাড়ের আঁকা-বাঁকা পথ ধরে গাড়ি ছুটে চলছে। ছিমছাম শহর শিমলা। পুরো শহরটি পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে গড়ে উঠেছে। সমতল বলে কিছুর দেখা পেলাম না।

পাহাড়ের কোল ঘেঁষে তৈরি করা পথ ধরে পৌঁছে গেলাম কুফরিতে। এখান থেকে ঘোড়ায় চড়ে যেতে হবে একদম উপরে। সেখানেই নাকি শিমলার সত্যিকারের সৌন্দর্য। ৫০০ টাকা করে জনপ্রতি টিকিট নিয়ে উঠে পড়লাম ঘোড়ায়। ধুলোমাখা সরু পথ। সারি সারি ছোট পাথর। ভয়ংকর সে পথ। নারী পর্যটকদের রোমাঞ্চকর চিৎকার। ২০ মিনিটের পথ পাড়ি দিয়ে পৌঁছলাম কুফরিতে। শুনেছিলাম এখানেও নাকি মানালির মতো বরফের দেখা মিলবে। কিন্তু বাস্তবে তার পুরোটাই উল্টো। কোথাও কোনো বরফ নেই।

পাহাড়ের উপরে কেবলই কিছু ছোট ছোট দোকান। অবস্থা দেখে মনে হলো, পর্যটকরা এখানে কেনাকাটাই করতে এসেছেন। ভয়ংকর পথ পাড়ি দিয়ে উপরে এসে অনেকটাই হতাশ। এবার ফিরতে হবে নিচে। ঘোড়ায় চড়ে উপরে ওঠা যত না কষ্টকর, নিচে নামতে নাকি তার চেয়েও বেশি ভয়ংকর। নিচে নেমে সে অনুভূতিই হচ্ছিল। মনে হচ্ছিল, এবারের মতো কোনো দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফিরলাম।

গ্রিন ভ্যালি থেকে ফাগু ভ্যালি
কুফরি থেকে ফিরতে দুপুর হয়ে গেছে। পথেই গ্রিন ভ্যালি, ফাগু ভ্যালি। পাহাড়ের রাস্তার একপাশে সারি সারি গাছ অন্যপাশে ঢালু পাহাড়। এ নিয়েই এই দুই ভ্যালি। পাশেই একটি রেস্টুরেন্টে পেয়ে গেলাম বাঙালি খাবার। এবারের গন্তব্য মল রোড।

shimla

মল রোড
ট্যাক্সি ড্রাইভার নামিয়ে দিলেন এক লিফট কাউন্টারের সামনে। লিফট কেন? লিফট দিয়েই নাকি পাহাড়ের ওপর উঠতে হবে। সেখানেই মল রোড। ১০ টাকা করে জনপ্রতি টিকিট সংগ্রহ করে লাইনে দাঁড়িয়ে লিফটে পৌঁছে গেলাম মল রোডে। মানালির মতোই সুন্দর শিমলার মল রোড। রাস্তার পাশে বসার জন্য ছোট ছোট ব্র্যাঞ্চ। কিন্তু রাস্তায় কোনো গাড়ি নেই। ছোট ছোট দোকান। সেখানে পর্যটকদের ভিড়। শিমলার শাল (চাদর) নাকি খুবই ভালো। মল রোড ঘুরেই তার প্রমাণ পেলাম। পাহাড়ের ঢালু পথ ধরে মল রোডে নেমে গেছে নিচের পাহাড়ে। রাস্তার একপাশে পাহাড় অন্যপাশে হরেক রকম পণ্যের দোকান।

শিমলার দর্শনীয় জায়গাগুলো আমাদের কাছে তেমন আকর্ষণীয় মনে হয়নি। তবে পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে গড়ে ওঠা শিমলা শহর খুবই সুন্দর। রাতে বাসে ফিরছি দিল্লি।

shimla


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution