• সন্ধ্যা ৭:৪৭ মিনিট শুক্রবার
  • ১লা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : শীতকাল
  • ১৫ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
ঢাকা এ বছর পাচ্ছে না শৈত্যপ্রবাহের দেখা হঠাৎ থমকে গেছে সোনারগাঁও পৌরসভা কাঁচপুরে এক জনের দেহে করোনা সনাক্ত, মোট সনাক্ত ৭৯৮ নেতাদের নালিশের পর এড: সামসুল ইসলামকে এমপি মির্জা আজমের ফোন এ এক দুঃখী বালিকার অশ্রুঝরা গল্প পাঁচ হেলিকপ্টার বহনে সক্ষম বিশাল যুদ্ধজাহাজ সামনে আনল ইরান সোনারগাঁয়ে তাহুরা ইমতিয়াজ ফাউন্ডেশনের শীত বস্ত্র বিতরণ কাঁচপুরে শীতলক্ষা নদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার সোনারগাঁয়ে বালতির পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু সোনারগাঁয়ে আরো ১ জনের দেহে করোনা সনাক্ত, মোট সনাক্ত ৭৯৩ বাকি তিন ম্যাচ ওমানে করার প্রস্তাব, রাজি নয় বাংলাদেশ মেকআপ উঠে লিপস্টিক মুছে গেলেও যা করেন দীপিকা পানাম নগরীতে ফেনসিডিলসহ আসিফ নামের এক ভাড়াটিয়া আটক সোনারগাঁয়ে আরো ২ জনের দেহে করোনা সানাক্ত, মোট সনাক্ত ৭৯৬ সাংবাদিকদের তিন দিন প্রশিক্ষণ শেষে সনদ বিতরণ সোনারগাঁ থানা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল পৌরসভা ও বৈদ্যেরবাজার এলাকায় ২ জনের দেহে করোনা সনাক্ত উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতার জমি জোর করে বালু ভরাটের চেষ্টা মান্নান’র পক্ষে সোনারগাঁ থানা বিএনপি নেতাকর্মীরা জেলার মানববন্ধনে বাবার ছবি নিয়ে মাকে খুঁজতে মেয়ের ৩২ বছর পার
বাঙ্গালীর বৈশাখ, বৈশাখী বাঙ্গালী… হুসাইন রবিউল

বাঙ্গালীর বৈশাখ, বৈশাখী বাঙ্গালী… হুসাইন রবিউল

Logo


নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকম:
জাতিগত ভাবে আমরা বাঙ্গালী হওয়ার সুবাদে পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ আমাদের নিজস্ব উৎসবে পরিনত হয়েছে। তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে পহেলা বৈশাখ এখন সার্বজনীন একটি উৎসব। পহেলা বৈশাখকে ঘিরে বাঙ্গালীর উৎসাহ, উদ্দিপনা আর আয়োজনের মাত্রা দিন দিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা যদি আজ থেকে ৫০ বছর পেছেনে ফিরে যাই তাহলে পহেলা বৈশাখ পালনের চিত্রটা কেমন দেখতে পাবো। তখন বাংলা নববর্ষ পালনে এখনকার মতো এত ঝাঁকজমক ছিল না। ছিল না উৎসবের এত বাহার। তবে সে সময় বৈশাখী মেলাসহ যেসব পারিবারিক আচার অনুষ্ঠান পালিত হতো সেগুলোতে প্রাণ ছিল। ছিল হৃদয়ের গভীর থেকে উঠে আসা অন্য রকম ভাল লাগা ভালবাসা। বর্তমানে পহেলা বৈশাখে নানামুখী উৎসবের আয়োজন করা হয়। পারিবারিক, সামাজিক এমন কি রাষ্ট্রীয়ভাবেও নববর্ষ পালনের উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু উৎসবগুলোতে প্রাণ খুঁজে পাওযা যায় না। কারণ এখন সবাই একদিনের বাঙ্গালী হওয়ার চেষ্টা করেন। বর্তমানে পহেলা বৈশাখ মানে বৈশাখী পোষাক আর পান্তা ইলিশের আয়োজন। আসলে আমরা যদি আমাদের শেকড়ের কাছে ফিরে যাই তাহলে এসব বৈশাখী পোষাক আর পান্তা ইলিশের অস্থিত্ব খুঁজে পাই না। হাল আমলে পহেলা বৈশাখে কিছু অতি উৎসাহী মানুষ এসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে বৈশাখের আসল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে ম্লান করে দিচ্ছেন। পহেলা বৈশাখে ইলিশ কেনার অসম প্রতিযোগিতা, ৫শত টাকার ইলিশ ২হাজার টাকায় কেনা। বৈশাখী পোষাকের জন্য দরিদ্র পরিবারের শিশুর আত্মহত্যা এ চিত্র দেখার জন্যই বৈশাখ? আমি হলফ করে বলতে পারি বৈশাখে যারা পান্তা ইলিশ নিয়ে মাতামাতি করেন আর রঙ্গিন পোষাকের বাহার নিয়ে ঘুরে বেড়ান তাদের অনেকেই বাংলা বারো মাসের নাম ঠিক মতো বলতে পারবেন না। বাঙ্গালী হিসেবে এটা কি লজ্জার নয়? দিন বদলের সাথে সাথে সময়ের চাহিদার কারণে ইংরেজি বর্ষপঞ্জি অনুসরন করতে হবে এটাই স্বাভাবিক কিন্তু বাঙ্গালী হিসেবে বাংলা বারো মাসের নাম বলতে না পারা এটা নিশ্চয় আমাদের ব্যর্থতা। তবে আমাদের খেটে খাওয়া প্রান্তিক জনগোষ্ঠি কিন্তু অবলীলায় বাংলা বারো মাসের নাম বলে দিতে পারেন। তারা কখনো মেকি বৈশাখ পালন করেন না। তারা ঐতিহ্যগত ভাবেই বৈশাখী রীতি পালনে বিশ্বাসী। বৈশাখ আমাদের ঐতিহ্যবাহী একটি উৎসব সুতরাং এ উৎসবে আমাদের ঐতিহ্যকে লালন করাই আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য কিন্তু এ দায়িত্বটা পালন করছে কে? নববর্ষের দিন আমাদের বাঙ্গালী চেতনা জাগ্রত হয়। একদিনের বাঙ্গালী হয়ে ছেলে মেয়েদের নিয়ে নেচে গেয়ে বৈশাখ পালন করে পরদিনই সবকিছু ভুলে কর্পোরেট জোয়ারে গা ভাসাই। ছেলে মেয়েকে ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ানোর প্রতিযোগিতায় নামি। বাংলা ভাষায় কথা বলা যেন শিশুদের অযোগ্যতা তাই তাদেরকে সারাক্ষণ ইংরেজিতে কথা বলতে হবে। ইংরেজিতে কথা বলা দোষনীয় নয়। তাই বলে বাংলা বলা যাবে না এটা কেমন কথা? বাংলার প্রতি যাদের এত এর্লাজি তাদের কী প্রয়োজন ঢাক ঢোল বাজিয়ে লোক দেখানো নববর্ষ উদযাপনের করার! পহেলা বৈশাখে এখনো গ্রাম গঞ্জে বৈশাখী মেলা বসে। আমরা আমাদের শিশুদের নিয়ে এসব মেলায় গিয়ে কখনো কি দেশীয় মিষ্টান্ন কিংবা ঐতিহ্যবাহী খাবার চিনিয়েছি? আমাদের গ্রামীন বাঁশের বাঁশি, তালপাতার পাখা, কাঠের হাতি ঘোড়া, মাটির পুতুল এসবের সাথে কি পরিচয় ঘটিয়েছি? বাতাসা, খৈ, মুড়ি-মুড়কি, জিলাপী এসবের নাম কি জানে আমাদের শিশুরা? নাগরদোলা, লাঠি খেলা কিংবা পুতুল নাচ এসব সম্পর্কে কি ধারনা দিয়েছেন আপনার শিশুকে? যদি এ বিষয়গুলো সম্পর্কে শিশুরা না জেনে থাকে তাহলে আপনি নিজ উদ্যোগে তাদেরকে জানান। কারণ বাঙ্গালীর শেকড়ের সাথে মিশে আছে এসব ঐতিহ্য। এগুলোর সাথে পরিচয় না ঘটিয়ে রংচং মেখে সং সেজে বৈশাখ পালন করা শুধুই মরিচিকার পেছনে ছুটে চলা। বৈশাখ বাঙ্গালীর প্রাণের উৎসব। বৈশাখ বাঙ্গালীর ভালবাসা। এক কথায় বাঙ্গালীর হৃদয় জুড়েই বৈশাখ। এ বৈশাখ যেন বাঙ্গালীর বৈশাখ হয়েই বেঁচে থাকে আজীবন। আমরা যেন একদিনের বৈশাখী বাঙ্গালী না হই।
লেখক: সম্পাদক, চারদিক


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution