• সকাল ৬:৫৮ মিনিট সোমবার
  • ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বসন্তকাল
  • ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সাবেক এমপি কায়সার ও কালামের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন আওয়ামী লীগ নেতা লায়ন বাবুলের নাগিনী জোহার কবর জিয়ারত চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহাগ রনি’র উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শ্রদ্ধা জানাতে এসে ধুলোবালিতে নেতাকর্মীরা মিলেমিশে একাকার কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের উদ্যােগে ৭ই মার্চ পালন সোনারগাঁয়ে থানা পুলিশের উদ্যোগে কেক কেটে আনন্দ উদযাপন ৭ মার্চ উপলক্ষে উপজেলা আহবায়ক কমিটির শ্রদ্ধা নিবেদন দাঁড়িয়ে কুরআন খতমই স্বাধীনতা দিবসের বিশেষ আয়োজন! লেখক মোশতাক হত্যার প্রতিবাদে সোনারগাঁয়ে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ক্রিকেট টূর্নামেন্টে সোনারগাঁও পৌরসভা গ্ল্যাডিয়েটর ৯ উইকেটে জয়ী বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে পিরোজপুর ২৯ রানের জয়ী সাবেক চেয়ারম্যান দেওয়ান উদ্দিন চুন্নু’র মত বিনিময় সভা যানজট ও ধুলোবালিতে অতিষ্ঠ পর্যটক এলাকা সোনারগাঁও নয়াগাঁও গ্রামে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত আরো ১ জনের মৃত্যু সাদিপুরে তাহের আলী গংদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী মুজিববর্ষ উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল টিকা নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জাদুঘরে খাবার ও জামদানী দোকানকে জরিমানা সনমান্দি ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্টের উদ্ধোধন চাঁদাবাজির অভিযোগ অস্বীকার করে যুবলীগ সভাপতির প্রতিবাদ সভা
মারা গেলেন কিংবদন্তি এমটি এম শামসুজ্জামান

মারা গেলেন কিংবদন্তি এমটি এম শামসুজ্জামান

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: প্রখ্যাত ও শক্তিমান অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান আর নেই। আজ শনিবার সকালে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বাংলাদেশ প্রতিদিনকে খবরটি নিশ্চিত করেছেন তার ছোট মেয়ে কোয়েল আহমেদ।  ‘আমার বাবা এবার সত্যি সত্যি না ফেরার দেশে চলে গেছেন’, এ কথা বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন কোয়েল।

 

এর আগে বেশ কয়েকবার এটিএম শামসুজ্জামানের মৃত্যুর ভুয়া খবর ছড়িয়ে পড়েছিল।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এটিএম শামসুজ্জামানকে। তার অক্সিজেন লেভেল কমে গিয়েছিল। হাসপাতালে ডা. আতাউর রহমান খানের তত্ত্বাবধানে ছিলেন তিনি।

 

তার পূণাঙ্গ নাম আবু তাহের মোহাম্মদ শামসুজ্জামান। তিনি এটিএম শামসুজ্জামান হিসেবেই অধিক পরিচিত। তিনি ১৯৪১ সালের ১০ সেপ্টেম্বর নোয়াখালীর দৌলতপুরে নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুর জেলার ভোলাকোটের বড় বাড়ি আর ঢাকায় থাকতেন দেবেন্দ্রনাথ দাস লেনে।

 

 

পড়াশোনা করেছেন ঢাকার পগোজ স্কুল, কলেজিয়েট স্কুল, রাজশাহীর লোকনাথ হাই স্কুলে। পগোজ স্কুলে তার বন্ধু ছিল আরেক অভিনেতা প্রবীর মিত্র। ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন ময়মনসিংহ সিটি কলেজিয়েট হাই স্কুল থেকে। তারপর জগন্নাথ কলেজে (বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়) ভর্তি হন।

তার বাবা নূরুজ্জামান ছিলেন নামকরা উকিল এবং শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের সঙ্গে রাজনীতি করতেন।

 

মাতা নুরুন্নেসা বেগম। পাঁচ ভাই ও তিন বোনের মধ্যে শামসুজ্জামান ছিলেন সবার বড়।

এটিএম শামসুজ্জামানের চলচ্চিত্র জীবনের শুরু ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর বিষকন্যা চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে। প্রথম কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেছেন জলছবি চলচ্চিত্রের জন্য। ছবির পরিচালক ছিলেন নারায়ণ ঘোষ মিতা, এ ছবির মাধ্যমেই অভিনেতা ফারুকের চলচ্চিত্রে অভিষেক। এ পর্যন্ত শতাধিক চিত্রনাট্য ও কাহিনি লিখেছেন। প্রথম দিকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেন তিনি। অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র পর্দায় আগমন ১৯৬৫ সালের দিকে। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের নয়নমণি চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে আলোচনা আসেন তিনি। ১৯৮৭ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত দায়ী কে? চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। তিনি রেদওয়ান রনি পরিচালিত চোরাবালিতে অভিনয় করেন ও শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব-চরিত্রে অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

১৯৮৭ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত ‘দায়ী কে?’ চলচ্চিত্রে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

জলছবি, যাদুর বাঁশি, রামের সুমতি, ম্যাডাম ফুলি, চুড়িওয়ালা, মন বসে না পড়ার টেবিলে চলচ্চিত্রে তাকে কৌতুক চরিত্রে দেখা যায়। তার অভিনয় জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয় আমজাদ হোসেনের নয়নমণি চলচ্চিত্রটি। এ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি আলোচনায় আসেন। এর আগে নারায়ণ ঘোষ মিতার লাঠিয়াল চলচ্চিত্রে খল চরিত্রে অভিনয় করেন। এ ছাড়া খল চরিত্রে তার কিছু উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হলো – অশিক্ষিত, গোলাপী এখন ট্রেনে, পদ্মা মেঘনা যমুনা, স্বপ্নের নায়ক।

এ ছাড়া বেশ কিছু চলচ্চিত্রে তিনি পার্শ্ব-চরিত্রে অভিনয় করেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে – অনন্ত প্রেম, দোলনা, অচেনা, মোল্লা বাড়ির বউ, হাজার বছর ধরে, চোরাবালি।

১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর বিষকন্যা চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন। এ ছাড়া খান আতাউর রহমান, কাজী জহির, সুভাষ দত্তদের সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন। এরপর ২০০৯ সালে প্রথম পরিচালনা করেন শাবনূর-রিয়াজ জুটির এবাদত নামের ছবিটি।

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution