• সকাল ৮:০৬ মিনিট শনিবার
  • ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : গ্রীষ্মকাল
  • ৬ই জুন, ২০২০ ইং
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সোনারগাঁয়ে ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত নেই দুধঘাটা ও পাঁচানী সড়কে বৃষ্টি হলেই বন্যা ! মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হোসেনের মৃত্যুতে উপজেলা বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের শোক বীর মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হোসেনকে রাষ্টীয় মর্যাদায় শেষ বিদায় জানালেন ইউএনও সাইদুল ইসলাম বৈরী আবহাওয়ায়ও লক ডাউন পরিবারে পৌছে যাচ্ছে এমপি খোকার খাবার সোনারগাঁয়ে ২দিনে করোনা আক্রান্ত সংখ্যা গড়ে সাড়ে ৩৮% সোনারগাঁয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশ সদস্য নিহত সোনারগাঁয়ে একদিনে সর্বোচ্চ ৬৩ জনের মধ্যে ২৮ জনের দেহে করোনা সনাক্ত সোনারগাঁয়ে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে ১৫ জনের মৃত্যু, মৃত্যুর কারণ গোপন করছে পরিবার মৃত ব্যক্তির দেহে কতক্ষণ সক্রিয় থাকে করোনা ভাইরাস প্রধানমন্ত্রীর উপহার অসহায়দের পৌছে দিলেন চেয়ারম্যান ইঞ্জি: মাসুম সোনারগাঁয়ে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামুলক নয়তো জরিমানা সোনারগাঁয়ে ৭৫ জনের মধ্যে ২৫ জনের দেহে করোনা সনাক্ত, মোট সনাক্ত ২৩৮ জান্নাতি ও জাহান্নামিদের মাঝে কথোপকথন!.. তুহিন মাহমুদ করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তিদের দাফনের ব্যবস্থা করলেন এমপি খোকার টিম বারদীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে ২ ব্যক্তির মৃত্যু লোকনাথ ব্রহ্মচারীর ১৩০ তিরোধান উৎসব স্থগিত সোনারগাঁয়ে করোনার উপসর্গ নিয়ে মেয়ের পর মায়ের মৃত্যু প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে সোনারগাঁয়ে সোনারগাঁয়ে জিয়াউর রহমানের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও ত্রাণ বিতরণ
সোনারগাঁয়ে করোনার ঝুঁকি নিয়ে গাদাগাদি করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন

সোনারগাঁয়ে করোনার ঝুঁকি নিয়ে গাদাগাদি করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন

Logo

নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: করোনা ভাইরাসের মধ্যে সপ্তাহে ২ দিন ব্যাংক খোলা থাকার কারনে করোনার ঝুঁকি নিয়ে গাধাগাধি করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করতে দেখা গেছে ব্যাংকের গ্রাহকদের। মাস শেষ হওয়ার একসাথে কয়েক হাজার শ্রমিকের বেতন উত্তোলন অপর দিকে ব্যাংক নিয়মিত না খোলায় এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিনে মোগরাপাড়া চৌরাস্তার কয়েকটি ব্যাংক ঘুরে দেখা যায়, প্রয়োজনে নিজেদের জমা রাখা টাকা উত্তোলন করতে ও কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরা তাদের মাসিক বেতনের টাকা তুলতে সকাল থেকে ভীড় করতে থাকেন মোগরাপাড়া চৌরাস্তার একটি ব্যাংকে। ব্যাংকের কর্মকর্তা ব্যাংক খোলার আগেই তারা ব্যাংকের মেইন গেইটে জড়ো হতে থাকে। এদিকে, করোনা ঝুঁকির কারণে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ব্যাংকের ভেতর অতিরিক্ত লোক সমাগম করতে দিচ্ছেন না ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। সামাজিক দুরত্ব মেনে লাইনে দাড়িয়ে একের পর এক গ্রাহককে সেবা প্রদান করেছেন তারা। অতিরিক্ত গ্রাহকের চাপে হিমশিম খেতে হয়েছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষকেও। অপরদিকে, সকাল থেকে ব্যাংকের সুরু বারান্দায় দাড়িয়ে থাকতে থাকতে অস্থির হয়ে পড়েন কয়েকশত নারী ও পুরুষ। সারা দিন রোজা রেখে সরু জায়গায গাধাগাধি করে লাইনে দাড়িয়ে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েন। করোনা ঝুঁকির মধ্যে অনেকে আবার একে অপরের গায়ের সাথে লেগে থাকতেও দেখা গেছে। অনেকে আবার লাইনে দাড়াতে দাড়াতে একে অপরের সাথে দ্বন্ধে জড়িয়ে পড়েছেন। এতে শুরু হয় বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতি। পরে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপের কারণে বড় ধরনের অপ্রতিকর ঘটনা থেকে রেহায় পায় গ্রাহকরা।

এ ব্যাপারে গ্রাহকরা জানান, সকাল থেকে বেতন উঠাতে এসে লাইনে দাড়িয়ে আছি। ব্যাংকের লোকদের স্লো কাজকর্মের কারণে দীর্ঘসময় লাইনে দাড়িয়ে সবাই ধর্য্য হারিয়ে ফেলেছে। সারা দিন রোজ রেখে ছোট একটি বারান্দায় দাড়িয়ে থেকে গরমে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তারপরও মহামারি করোনার ঝুঁকিতো রয়েছে।

এ ব্যাপারে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানান, একসাথে এত লোকের বেতন হওয়ায় তাদের সেবা দিতে আমরা হিমশিম খাচ্ছি। এ ছাড়া ব্যাংক যেহেতু সপ্তাহে দুদিন খোলা থাকে সেজন্য গ্রাহকের ভীড়টা একটু বেশী আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করে যাচ্ছি যাতে তাদের কষ্ট করতে না হয়।

Logo
এই নিউজটি শেয়ার করুন...

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution