• রাত ১:২৬ মিনিট সোমবার
  • ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : গ্রীষ্মকাল
  • ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
আগামী শুক্রবার সোনালী অতীত বনাম প্রেস ক্লাবের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ সোনারগাঁয়ে র‍্যাবের অভিযানে ৫০ কেজি গাঁজা উদ্ধার মাদ্রাসার নতুন ভবন পরিদর্শনে এমপি খোকা বেঙ্গালুরুতে তরুণীকে দলবদ্ধ ধর্ষণের দায়ে ১১ বাংলাদেশির কারাদণ্ড সোনারগাঁয়ে বিশ্ব মেডিটেশন দিবস পালন সাদিপুরে শ্রমিকলীগের পুর্ণমিলনী মোগরাপাড়া ইউপি নির্বাচনে ২ ইউপি সদস্যের মনোনয়নপত্র বাতিল জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে একই পরিবারের ৩জনকে পিটিয়ে জখম বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টুর্ণামেন্ট ফাইনালে বৈদ্যেরবাজার ইউপি ১-০ গোলে জয়ী বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টে নোয়াগাঁওকে হারিয়ে বৈদ্যেরবাজার ফাইনালে সোনারগাঁও পৌরসভাকে হারিয়ে জামপুর ফাইনালে আলেমদের তালিকার প্রতিবাদে সোনারগাঁয়ে জামায়াতের বিক্ষোভ আলেমদের তালিকার প্রতিবাদে সোনারগাঁয়ে জামায়াতের বিক্ষোভ কাঁচপুরে মিরাজ নামের ১২ বছরের কিশোর নিখোঁজ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টুনামেন্টে জামপুর ইউনিয়ন ৩ – ২ গোলে জয়ী যেতে_যেতে_পথে দরগাবাড়ি_নহবতখানা মনোনয়ন জমা দিয়ে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে নৌকার পরিবার দাবি, নৌকা না পেলেই বিদ্রোহী, এড. সামসুল ইসলাম মোগরাপাড়া ইউপি নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন যারা শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আহবায়ক কমিটি, যুবলীগ ও শ্রমিক লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন
সোনারগাঁয়ে গায়ের জোরে ঈদ বকশিসে হয়রানী পর্যটক ও স্থানীয়রা

সোনারগাঁয়ে গায়ের জোরে ঈদ বকশিসে হয়রানী পর্যটক ও স্থানীয়রা

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: ঈদ উল ফিতর চলে গেছে আরো দুই দিন আগে কিন্তু এখনো ঈদের বকসিশ নামের অতিরিক্ত ভাড়ায় হয়রানীর শিকার হচ্ছেন স্থানীয় ও সোনারগাঁয়ে ঘুরতে আসা পর্যটকরা। বিশেষ করে লোকাল বাস ও অটোরিক্সাগুলোতে চলতে বকশিসের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য। বকশিসের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রবনতায় দিশেহারা হচ্ছেন সাধারণ লোকজন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন তদারকি না থাকার কারণে ঐতিহ্যবাহী পর্যটকখ্যাত সোনারগাঁয়ে আসা পর্যটকরা সর্বক্ষেত্রে হয়রানীর শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন তারা।

জানাগেছে, গত মঙ্গলবার মুসলিম উম্মার সবচেয়ে বড় উৎসব ঈদ উল ফিতর উদযাপন হয়ে গেছে। ঈদ উপলক্ষে ঈদের দুই দিন আগ থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে লোকাল যাত্রীবাহি বাসগুলো ঈদ বকশিসের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করেছে স্থানীয় যাত্রীদের কাছ থেকে। কেউ অতিরিক্ত ভাড়া দিতে অস্বীকৃতি জানালে বাসের হেলপার ও ড্রাইভারের সাথে হয়েছে বাকবিতন্ডা। অনেক ক্ষেত্রে বাসে উঠার আগেই কোথায় নামবেন সেটা জেনে ১০টাকার ভাড়া ২০টাকা আদায় করা হয়েছে। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে বাসে উঠতে দেয়নি হেলপার ও ড্রাইভাররা। আবার অনেক ক্ষেত্রে বাসে উঠে অতিরিক্ত ভাড়া দিতে অস্বীকৃতি জানালে হেলপার ও ড্রাইভারের সাথে হয়েছে বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতি। আবার অনেক ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ভাড়া না দিলে পথিমধ্যে বাস থেকে রাস্তার যাত্রী নামিয়ে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে। ঈদের আগ থেকে নিজেদের তৈরী করা বকশিসের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রবনতা এখনো চলছে। এদিকে গত দুই বছর করোনা ভাইরাসের ধাক্কা শেষ হবার পর এবার মানুষ মনের সুখে আগের মতো ঈদ আনন্দে মেতে উঠেছে। সে আনন্দে ঈদের দিন থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে পর্যটন খ্যাত ঐতিহাসিক সোনারগাঁয়ের জাদুঘরে ও অন্যান্য বিনোদন স্পষ্টগুলোতে ঘুরতে আসেন। সে সুযোগে ঈদের দিন থেকে লোকাল বাস, অটোরিক্সা ও সিএনজিগুলো বকশিসের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে পর্যটকদের কাছ থেকে। শুধু পর্যটক নয় তাদের বকশিস নৈরাজের শিকার হয়েছে স্থানীয় লোকজনও। অটোরিক্সা চালকগুলো তাদের মন মতো ভাড়া আদায় করেছেন যাত্রীদের কাছ থেকে। এদিনে পর্যটকরা প্রতিবাদ করলে কয়েকজন অটো চালক মিলে তাদের লাঞ্চিত করাও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জেলার বন্দর উপজেলা থেকে সোনারগাঁও জাদুঘরে পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা মামুন জানান, ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে তারা এসেছেন সোনারগাঁও জাদুঘরে। মোগরাপাড়া চৌরাস্তা আসার পর অটো রিক্সা নিয়ে জাদুঘরে আসেন পরিবারের ৫ সদস্য। জাদুঘরে নামার পর তার কাছ থেকে জনপ্রতি ৩০টাকা দাবি করেন অটো চালক। তখন তিনি বলেন, কতদিন আগে আসলাম আমি ১০টাকা দিয়ে আর তুমি এখন যাচ্ছ ৩০ টাকা এর মানে কি? তখন অটোচালক বলেন ঈদের বকশিস দিবেন না। তখন তিনি বলেন তুমি বকশিস চাইলে ২০টাকা অতিরিক্ত নিতে পারে তার জন্য জনপ্রতি ২০টাকা অতিরিক্ত নিবে এটা তো জুলুম। এ নিয়ে তার সঙ্গে বাকবিতন্ডা হয় চালকের। তখন চালকের সাথে অন্য চালকরাও যোগ দিয়ে পরিবারের সামনে তাকে লাঞ্চিত করা চেষ্টা করেন। মান উজ্জতের ভয়ে তিনি তখন তাকে বাধ্য হয়ে দেড়শত টাকাই প্রদান করেন। শুধু সোনারগাঁ জাদুঘরে নয় এমন অনেক ঘটনা ঘটেছে অন্যান্য বিনোদন কেন্দ্রগুলোতেও।

মোগরাপাড়া বাজারের বাসিন্দা আবুল হোসেন জানান, ঈদের আগে মোগরাপাড়া বাজারে অটোতে আসতাম ৫ টাকা দিয়ে এখন অন্য লোকের সাথে আসলে ১০টাকা আবার একা আসলে ২০টাকা দিতে হয়।

লোকাল বাস চালক ও অটো রিক্সা ওয়ালারা জানান, ঈদকে সামনে রেখে আমরা দুই পয়সা বেশী উনকামের জন্য বকশিস আদায় করছি। চাকুরীজীবিরা ঈদের সময় কর্মক্ষেত্র থেকে ঈদের বকশিস পান, ব্যবসায়ীরা ঈদে বেচাকেনা করে অতিরিক্ত টাকা ইনকাম করেন। কিন্তু আমাদের তো কেউ ইচ্ছা করে বকশিস দিবে না। তাই যাত্রীদের কাছ থেকে চেয়ে নিতে হয়। জোর করে অর্থ আদায়ের ক্ষেত্রে তারা জানান ভাই কেউ কি ইচ্ছা করে বেশী টাকা দিবে সেজন্য তাদের জিম্মি করেই আদায় করতে হয়। ইচ্ছা হলে গাড়ীতে আসবে না হয় আসবে না।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution