তিনি বলেছেন, র‌্যাব এত বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে, অন্যায় করেছে যে আজ আমেরিকা র‌্যাবকে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। ৭ জন কর্মকর্তা যাদের মধ্যে আমাদের পুলিশ প্রধানও আছেন, তাদের আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। এদের বরখাস্ত করা উচিত ছিল।

তবে তা না করে এই কয়েক দিন আগে আবারও ২ জনকে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়েছে। এ সমস্যা যারা তৈরি করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে তারা ভারতের কাছে সাহায্য চাইছে। 

শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা শিল্প নগরী এলাকায় সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপি আয়োজিত ইফতার মাহফিল ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, সরকার গণতন্ত্রের লেবাস ধরে বাকশালের মতো এক দলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছে। আওয়ামী লীগের একদলীয় শাসন থেকে সাধারণ মানুষকে মুক্ত করতে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটিয়ে নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থায় নতুন সংসদ ও সরকার গঠন করতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ একবার ক্ষমতায় এসে রাজনৈতিক দল ও গণমাধ্যম বন্ধ করে দিয়েছিল। এখন গণতন্ত্রের লেবাস পরিধান করে একই কাজ করেছে বিরোধী দলকে দমন করার জন্য। ৩৫ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে।

চৌধুরী আলমসহ অনেক অসংখ্য নেতা-কর্মীকে গুম করেছে। 

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বিষয়ে সরকারের সিন্ডিকেটের কঠোর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন দ্রব্যমূল্য মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। বছরের তিন থেকে চারবার গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হচ্ছে। নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠছে।

অনুষ্ঠানে বিএনপির অসহায় ও নির্যাতিত নেতাকর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ঈদ উপহার হিসেবে নগদ অর্থ তুলে দেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

পরে আলোচনাসভায় লন্ডন থেকে টেলিকনফারেন্সে অংশ নেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তিনি উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এ সরকার মানুষের উপর অত্যাচার নিপীড়ন চালাচ্ছে। এ সরকার জনগণের সরকার হতে পারে না, তাই রাজপথে কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন করতে হবে। সবাইকে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি আজহারুল ইসলাম মান্নান। সোনারগাঁ থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন- ঢাকা বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি মোশারফ হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজিবসহ জেলা ও উপজেলার বিএনপির নেতৃবৃন্দ।