• রাত ১১:২৩ মিনিট মঙ্গলবার
  • ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : হেমন্তকাল
  • ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
এমপি খোকাকে নিয়ে কুরুচিপুর্ণ বক্তব্য প্রদানকারী জাহাঙ্গীরকে অব্যাহতি এমপি’র বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের প্রতিবাদে জাতীয় পার্টির প্রতিবাদ সভা সোনারগাঁয়ে ঈদগাহর জমি দখলের পায়তারা, বিক্ষোভ মিছিল সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগকে শোকজ ! কলাপাতা রেষ্টুরেন্টের নতুন সংযোজন জন্মদিনের কেক সোনারগাঁয়ে ৮ জনের নমুনায় ৩ জনের দেহে করোনা সনাক্ত আমি বিএনপি করি স্যার জানে ফোনালাপে অধ্যক্ষ সুলতান মিয়া আমি নারী তাই মেয়র নির্বাচিত হলে নারী উন্নয়নর কাজ করবো.. ঝরা বির্তক পিছু ছাড়ছে না নাম ফলকের তড়িঘড়ি করে লাগানো হলো সোনারগাঁও জি আর ইনিষ্টিটিউশনের নাম ফলক এ বছর হচ্ছে না সোনারগাঁও পৌরসভা নির্বাচন শ্রমিকলীগ সভাপতি মন্টুর আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া সোনারগাঁয়ে গোরস্থানের জমি দখলের পায়তারার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সোনারগাঁয়ে দুটি দোকানে আগুন, ৪০ লাখ টাকার মালামাল পুড়ে ছাই জমি লিখে না দেয়ায় আলাউদ্দিন বাহিনীর তান্ডব, বাড়িঘর ভাংচুর আহত ৬ পৌর মেয়র পদপ্রার্থী ছগীর আহম্মেদ করোনায় আক্রান্ত প্রতিবাদ মূখর সোনারগাঁয়ের রাজনীতি সোনারগাঁয়ে আরো ১ জনের দেহে করোনা সনাক্ত, মোট সনাক্ত ৬৭৬ সোনারগাঁয়ে ছাত্রদলের দোয়া মাহফিল সোনারগাঁয়ে আরো ৩ জনের দেহে করোনা সনাক্ত
সোনারগাঁয়ের রাজনীতি ও নির্বাচনের বিভিন্ন দিক নিয়ে মাহফুজুর রহমান কালামের সাক্ষাতকার

সোনারগাঁয়ের রাজনীতি ও নির্বাচনের বিভিন্ন দিক নিয়ে মাহফুজুর রহমান কালামের সাক্ষাতকার

Logo


নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকম:

ছাত্র রাজনীতি দিয়ে মাহফুজুর রহমান কালামের রাজনৈতিক পথ চলা শুরু। সোনারগাঁ ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন তিনি পরে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। সোনারগাঁ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগে যুক্ত হন। বর্তমানে তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। সোনারগাঁয়ে তিনি দীর্ঘ সময় তিনি আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয় আছেন। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী তিনি। সোনারগাঁয়ের রাজনীতি ও আগামী নির্বাচনের বিভিন্ন দিক নিয়ে মাহফুজুর রহমান কালাম কথা বলেছেন নিউজ সোনারগাঁ এর সাথে। সাক্ষাতকার নিয়েছেন সোনারগাঁয়ের তরুণ লেখক ও সাংবাদিক রবিউল হুসাইন।

নিউজ সোনারগাঁ: আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে কিভাবে আসলেন?

মাহফুজুর রহমান কালাম: ছোটবেলা থেকেই ভাষা আন্দোলন, স্বাধিকার আন্দোলন, বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ আমাকে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার জন্য আকৃষ্ট করেছে। আমি সোনারগাঁ ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হই।

নিউজ সোনারগাঁ: রাজনীতির শুরু থেকেই হাসনাত পরিবারের সাথে আপনার বেশ সখ্যতা ছিলো। এমনকি আবদুল্লাহ আল কায়সারের মনোনয়ন থেকে শুরু করে সংসদ সদস্য হওয়া পর্যন্ত আপনার সক্রিয় ভূমিকা লক্ষ্য করা গেছে। কিন্তু হঠাৎ করে কায়সার হাসনাতের সাথে আপনার একটি বিশাল গ্যাপ তৈরী হয়েছে। এর কারণ কি?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আমি কায়সার হাসনাতের পিতা মরহুম আবুল হাসনাত সাহেবের সাথে রাজনীতি করেছি। এক সময় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে কায়সার হাসনাতকে রাজনৈতিক মাঠে নামানোর জন্য আমাকে দায়িত্ব দেন তিনি । কায়সার হাসনাতকে তখন সোনারগাঁয়ের মানুষ চিনতো না। কায়সার মানুষের সামনে বক্তব্য দিতে পারতো না। আমি তাকে লিখে লিখে বক্তব্য দেয়া শিখিয়েছি। সোনারগাঁয়ের মানুষের কাছে পরিচিত করেছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় তখন কায়সার হাসনাতের চাচা ও তাদের পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা কায়সার হাসনাতের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। তার চাচা আলাদা ভাবে মনোনয়নের জন্য মাঠে নামেন। আমি নিজ দায়িত্বে কায়সারকে নিয়ে তখনকার শক্তিশালী প্রার্থী আ ন ম বাহাউল হককে ডিঙ্গিয়ে কায়সারের মনোনয়ন নিশ্চিত করি। সে সময় আমাদের কর্মী সমর্থকরা অনেক কষ্ট ও ত্যাগ শিকার করে তাকে এমপি নির্বাচিত করেছেন। আর্শ্চযের বিষয় হচ্ছে এমপি হওয়ার আগে তার পরিবারের যারা তার বিরুদ্ধে ছিল এমপি হওয়ার পর তারা কায়সারের ঘাড়ে চেপে বসে এবং কায়সারের সাথে থাকা ত্যাগী নেতাদের দূরে ঠেলে দিতে শুরু করে। আসন্ন নির্বাচনে কায়সার মনোনয়ন চাচ্ছে পাশাপাশি তার পরিবার থেকে চাচা মোশারফ হোসেন সেই আগের মতোই কায়সারের প্রতিদ্বন্ধি হয়ে মাঠে নেমেছে। কায়সার এখন বুঝতে পারছেন তার পরিবারের সদস্যরা তার কি ক্ষতি করছে। মূলত কায়সারের সাথে আমার গ্যাপ তৈরী হওয়ার পিছনে তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা দায়ী।

নিউজ সোনারগাঁ: আপনি আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সোনারগাঁ আসন থেকে নৌকার মনোনয়ন চাচ্ছেন। কিন্তু আপনি সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দু’বার পরাজিত হয়েছেন। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পেলে সে পরাজয় ওভারকাম করে কিভাবে বিজয়ী হবেন?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আসলে আমি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সময় তৎকালীন সংসদ সদস্য কায়সার হাসনাতের সাথে কমিটমেন্ট ছিলো উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমাকে তিনি সমর্থন করবেন। পুরো উপজেলা আওযামীলীগের নেতাকর্মী আমার পক্ষে ছিলেন। তারপরও তিনি আমাকে সমর্থন করেননি। উল্টো তার চাচা মোশারফ হোসেন আমার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। ২০১৪ সালের উপজেলা নির্বাচনেও আওয়ামীলীগ থেকে মোশারফ হোসেন আমার বিরুদ্ধে প্রার্থী হন। হাসনাত পরিবারের এ বৈরিতার কারণেই আমি দু’বার পরাজিত হয়েছি। সেটা ভিন্ন পরিস্থিতির কারণে হয়েছে। তবে, বর্তমান পরিস্থিতি আলাদা সোনারগাঁবাসী আমার সর্ম্পকে সবই জানেন। আমি ৩০/৩৫ বছর যাবত দলের সূসময় ও দুঃসময়ে দলের সাথে ছিলাম। সাধারন জনগন আমার পক্ষে আছেন। মানুষ চায় আমি একটা কিছু হই। আমি নৌকার মনোনয়ন পেলে সোনারগাঁয়ে বিএনপির যত শক্তিশালী প্রার্থীই হোক না কেন তাকে পরাজিত করে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে এ আসন থেকে নৌকা উপহার দিবো ইনশাল্লাহ।

নিউজ সোনারগাঁ: সোনারগাঁয়ে ১০ জন প্রার্থী নৌকার মনোনয়ন চাচ্ছে সেক্ষেত্রে আপনি মনোনয়ন পেলে বাকিদেরকে আপনার সাথে সম্পৃক্ত করতে পারবেন কিনা?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আমার বিশ্বাস তারা অবশ্যই নৌকার পক্ষে কাজ করবে। বিগত নির্বাচনেও সোনারগাঁয়ে নৌকার একাধিক প্রার্থী ছিল। আমার নেতৃত্বে সবাইকে একসাথে নিয়ে ২৩ বছর পর সোনারগাঁয়ে নৌকার বিজয় ছিনিয়ে এনেছি। আসন্ন নির্বাচনেও সবাইকে একসাথে নিয়ে আবারো নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে পারবো বলে আমি আশাবাদী।

নিউজ সোনারগাঁ: যদি আপনি মনোনয়ন না পেয়ে বাকি ৯ জনের যে কোন একজন পায়। সেক্ষেত্রে আপনার ভূমিকা কি হবে?

মাহফুজুর রহমান কালাম: যেই মনোনয়ন পাক আমি অবশ্যই নৌকার নির্বাচন করবো। নৌকার নির্বাচন না করলে নিজের পায়ে নিজে কুড়াল মারা হবে।

নিউজ সোনারগাঁ: যদি কায়সার হাসনাত মনোনয়ন পান?

মাহফুজুর রহমান কালাম: কায়সার নৌকার মনোনয়ন পেলে অবশ্যই কায়সারের নির্বাচন করবো। কায়সার আমাকে না ডাকলেও আমি নিজে থেকেই তার কাছে যাবো।

নিউজ সোনারগাঁ: বর্তমানে এ আসনে মহাজোটের এমপি রয়েছেন। আসন্ন নির্বাচনে আসনটিতে আপনারা নৌকার মনোনয়ন নিশ্চিত করতে পারবেন কিনা?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আমরা চেষ্টা করছি এ আসনে নৌকার মনোনয়ন নিশ্চিত করতে। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় নৌকার মনোনয়ন না পেলে সেটা হবে চরম দুঃখজনক। আমরা যারা মনোনয়ন প্রত্যাশী সবাই যে যার মতো করে চেষ্টা করছি এখানে যাতে নৌকা প্রতিক দেয়া হয়। ব্যক্তিগতভাবে আমি প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করেছি। বলেছি একটি আসনে বারবার মহাজোটকে মনোনয়ন দিলে আওয়ামীলীগ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে। সুতরাং আশা করি নেত্রী আমাদের কথা বিবেচনা করবেন এবং এ আসনে এবার নৌকার মনোনয়ন দিবেন।

নিউজ সোনারগাঁ: প্রায় ১৮ বছর যাবত একই কমিটি দিয়ে সোনারগাঁ আওয়ামীলীগ চলছে। আসন্ন নির্বাচনে কমিটির কোন প্রভাব পড়বে কিনা?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আমার মনে হয় নির্বাচনে এ কমিটির কোন প্রভাব পড়বে না। জেলা কমিটিও দীর্ঘ ১৮ বছর যাবত হয় নাই। গত বছর জেলা কমিটি নতুন হয়েছে। উপজেলা কমিটিও হবে। তবে দীর্ঘ সময় কমিটি না হওয়া দুঃখজনক। আমার নিজেরই লজ্জা লাগে আমাকে এখনও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিতে হয়। অনেক যোগ্যতা সম্পন্ন নেতাকর্মী পদ-পদবী পাচ্ছে না। আশাকরি নির্বাচনের পর দ্রুত সময়ে একটি নতুন কমিটি উপহার দেয়া যাবে।

নিউজ সোনারগাঁ: আসন্ন নির্বাচনে এ আসনে নৌকার মনোনয়ন দিলে জয়ের ব্যাপারে আপনি কতটা আশাবাদী?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আমি মনে করি সোনারগাঁ আওয়ামীলীগের মধ্যে কিছু দ্বিধা বিভক্তি ছিল যার কারণে বিগত সময়ে বিএনপি এ সুযোগ নিয়েছে।অতীতে যারা এখানে আওয়ামীলীগের রাজনীতি করেছেন তারা এক হয়ে কাজ না করায় আওয়ামীলীগ পরাজিত হয়েছে। কিন্তু নতুন প্রজম্ম এখন আর দ্বিধা বিভক্ত নয়। আমরা সবাই একমঞ্চে এসে যখন নৌকার পক্ষে মাঠে নামবো তখন এমন কোন শক্তি নাই যে সোনারগাঁয়ে নৌকাকে পরাজিত করে। বর্তমানে সোনারগাঁ নৌকার শক্তিশালী ঘাঁটিতে পরিনত হয়েছে।

নিউজ সোনারগাঁ: ২০০৮ থেকে ২০১৮ এ দশ বছরে সোনারগাঁয়ে ভোটার বেড়েছে প্রায় এক লাখ। এ নতুন প্রজম্মের ভোটগুলো কোন দিকে যেতে পারে বলে আপনি মনে করেন?

মাহফুজুর রহমান কালাম: আমাদের বড় শক্তি হচ্ছে নতুন প্রজম্ম। ২০০৮ সালে নতুন প্রার্থী হিসেবে কায়সার হাসনাতকে নতুন প্রজম্মই ভোট দিয়ে বিজয়ী করতে ভূমিকা পালন করেছে। আমাদের দেশে আওয়ামীলীগ নিয়ে কিছু অপ্রচার ছিল। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এলে দেশ ভারতের কাছে বিক্রি করে দিবে, মসজিদে ঘন্টা বাজবে ইত্যাদি। কিন্তু বর্তমান প্রজম্ম শিক্ষিত ও সচেতন। তারা বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস জানতে পেরেছে তাই তারা এসব মিথ্যাকে প্রত্যাখান করেছে। তাই নতুন প্রজম্ম আওয়ামীলীগকে সমর্থন করছে। সোনারগাঁয়ে বিএনপির এমন কোন অবস্থান নেই যে নতুন প্রজন্ম বেএনপির দিকে ঝুকবে। সুতরাং নতুন এক লাখ ভোটই আমাদের মূল পূঁজি।

নিউজ সোনারগাঁ: জোটকে মনোনয়ন দিলে আপনাদের ভুমিকা কি হবে?

মাহফুজুর রহমান কালাম: তখন দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কাজ করবো। জোটকে মনোনয়ন দিলে কেন্দ্র থেকে আমাদের কাছে কিছু নির্দেশনা আসবে সে নিদের্শনা অনুযায়ী আমরা কাজ করবো।

নিউজ সোনারগাঁ: সোনারগাঁবাসীর উদ্দেশ্যে আপনার বক্তব্য কি?

মাহফুজুর রহমান কালাম: সোনারগাঁ ইতিহাস ও ঐতিহ্য সমৃৃদ্ধ স্থান। আমি চাই সোনারগাঁয়ে এমন একজন নেতৃত্বে আসুক যিনি সোনারগাঁবাসীর সুখ এবং দুঃখ দুটিই বুঝতে পারে। হুটহাট করে এসে যারা এমপি হয়ে যায় তারা সোনারগাঁয়ের মানুষের দরদ বুঝতে পারে না। এজন্য সোনারগাঁবাসীর কাছে আবেদন তারা যেন একজন যোগ্য নেতৃত্ব বেছে নেয়। আমি আশা করি সোনারগাঁটা এমন একটা সুন্দর সোনারগাঁ হবে যেখানে মাদক থাকবে না, সন্ত্রাস, হানাহানি ও রাহাজানি থাকবেনা। ইতিহাস ঐতিহ্যের ধারক বাহক হিসেবে সোনারগাঁ তার মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখবে ।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution