• সন্ধ্যা ৭:৪৭ মিনিট বৃহস্পতিবার
  • ৩০শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : গ্রীষ্মকাল
  • ১৩ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
ঢাবি ছাত্র সংগঠন ডাসাসের ইফতার আয়োজন ও নতুন কমিটি ঘোষণা” সোনারগাঁয়ে ৪ জনের দেহে করোনা সনাক্ত ঈদকে সামনে রেখে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কমেছে রোগীর চাপ জাতীয় অধ্যাপক প্রফেসর আলমগীর সিরাজুদ্দীন এবং কিছু কথা এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার ঈদ সামগ্রী বিতরন মোগরাপাড়ার হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে সোহাগ রনি’র খাদ্য সামগ্রী বিতরন সোনারগাঁ রয়েল রির্সোট হামলায় ঘটনায় সানি গ্রেপ্তার সোনারগাঁয়ে ৭টি দোকানে ভূস্মিভূত, ২০ লাখ টাকার ক্ষতি থানা যুবলীগের ব্যানারে বৈদ্যেরবাজারে আল-আমিন সরকারের ঈদ সামগ্রী বিতরণ রোজা হবে ৩০টি: সৌদি আরব খালেদা জিয়া ও মান্নানের সুস্থতা কামনায় দোয়া ও ঈদ সামগ্রী বিতরন চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহাগ রনির উদ্যোগে ২৫০০ জনকে ঈদ সামগ্রী বিতরন সোনারগাঁয়ে ১১ জনের নমুনায় ৬ জনের দেহে করোনা সনাক্ত চেয়ারম্যান প্রার্থী আল-আমিন সরকারের উদ্যোগে ১৫শ পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরন সোনারগাঁয়ে থানা ছাত্রদলের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সোনারগাঁয়ে চোরাই মোবাইল বেচাকেনার অভিযোগে ২জন আটক সোনারগাঁয়ে আরো ৬ জনের দেহে করোরা সনাক্ত রাস্তায় ঘুরে ঘুরে আওয়ামীলীগ নেত্রীর অসহায়দের ইফতার বিতরন কনকাপৈত ইউপি চেয়ারম্যান জাফর ইকবালের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণ না:গঞ্জে মামুনুল হকের রিমান্ড শুনানী আবারও পেছালো
শিশুর স্থায়ী দাঁত ওঠার সমস্যায় ভীত না হওয়ার পরামর্শ

শিশুর স্থায়ী দাঁত ওঠার সমস্যায় ভীত না হওয়ার পরামর্শ

Logo


প্রায়ই দেখা যায় শিশুর দুধদাঁত একসঙ্গে দুই-তিনটি পড়ছে, কিন্তু স্থায়ী দাঁত ওঠার সময় উঠছে মাত্র একটি। শিশুদের ক্ষেত্রে এটি অস্বাভাবিক নয় উল্লেখ করে ডেন্টাল সার্জনরা অভিভাবকদের ভীত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। তারা বলছেন, ডেন্টাল সার্জনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে এর সুরাহা সম্ভব।
আরফার বয়স চার বছর ১১ মাস। এরই মধ্যে তার দুটো দাঁত পড়ে গেছে। তাকে নিয়ে বাবা আরাফাত সিদ্দিকীর দুশ্চিন্তার শেষ নেই! মেয়ের দুটো দাঁত পড়েছে, কিন্তু একটি উঠলেও আরেকটি দাঁত ওঠার ক্ষেত্রে স্পেস (জায়গা) কম। দাঁতগুলো ঠিকমতো উঠবে তো? তবে আরফার মা ফারিয়া মোশাররফ বলেন, ‘আমার ভাবি একজন ডেন্টিস্ট। তিনি পাশের দাঁত নড়ছে কিনা, দেখতে বললেন। দেখি সত্যি পাশের দাঁতটিও নড়ছে। পরে আরফা নিজেই ওই দাঁত নড়িয়ে ফেলে দিয়েছে। আমার মনে হয়, ওর দাঁত ঠিকমতোই উঠবে।’
মগবাজারের বাসিন্দা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আকলিমা আক্তারের উপরের পাটির সামনের দিকের ডান পাশের একটি দাঁতের গ্যাপ (ফাঁক) রয়েছে। কারণ ছোটবেলায় দাঁতটা ঠিকমতো ওঠেনি। এ প্রসঙ্গে তার স্বামী তারেক সালমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ওই জায়গাটাতে দাঁতটা নতুন করে ওঠেইনি। পরিবারের অভিভাবকরা বিষয়টি সেভাবে বোঝেননি, তারা চিকিৎসকের কাছে নিয়েও যাননি।’
তিনি বলেন, ‘আমি মাঝে মাঝে এটা নিয়ে মজা করি। আমাদের দুই সন্তান। মেয়ের বয়স পাঁচ বছর। তার দাঁতে মায়ের মতো কোনও সমস্যা এখনও পাইনি। আর ছেলের বয়স ছয় মাস, তার তো এখনও দাঁত সেভাবে ওঠেনি।’
মিরপুরের বাসিন্দা সুমনা আহমেদ ও শাহরিয়ার শরীফ দম্পতির পাঁচ বছরের মেয়ে ফাহমিনা আহমেদের দুটি দাঁত একসঙ্গে পড়েছে। কিন্তু একটি দাঁতও ওঠেনি। এ নিয়ে চিন্তিত এই দম্পতি। সুমনা আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা চিন্তিত, দেখা যাক কী হয়!’
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক আলী আজগর মোড়ল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘শিশুর দাঁত পড়ে যাওয়ার পর না ওঠা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। এক্সরে করে দেখতে হবে, কী কারণে দাঁত উঠতে পারছে না। শিশুদের চোয়ালগুলো খাবারের সময় মুভমেন্ট হয়। আমরা আগেকার দিনে শক্ত খাবার বেশি খেতাম। শক্ত খাবার খেলে মুখের এই অংশটুকুর ম্যাসেজ হতো, অটোমেটিক্যালি দাঁত উঠে যেতো।’
এখনকার শিশুরা শক্ত খাবার একেবারেই খায় না, ফাস্টফুড জাতীয় খাবার বেশি খায় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এ জন্য মুখের নড়াচড়া কম হয়। ফলে স্বাভাবিকভাবে দাঁত ওঠে না। এক্সরে করে দেখতে হবে যে, দাঁতটা ভেতরে আছে কিনা, থাকলেও এর পজিশন ঠিক আছে কিনা। মাংসের কারণে যদি উঠতে না পারে সেক্ষেত্রে ওই মাংসটুকু একটু কেটে দিতে হয়।’
নিটোল ডেন্টাল চেম্বারের ডেন্টাল সার্জন ডা. মো. আনোয়ারুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘দুটি দাঁত পড়ে যাওয়ার পর একটি উঠেছে, একটি দাঁত ওঠেনি— এক্ষেত্রে প্রথমে এক্সরে দেখতে হবে পারমানেন্ট টুথ জার্ম আছে কিনা। যদি টুথ থাকে তাহলে বাধা পাচ্ছে কোন কারণে, সেটা দেখতে হবে। যেকোনও ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডার হতে পারে। দাঁতের রুট ঠিকমতো তৈরি হচ্ছে না, বা বাধা পাচ্ছে কোন কারণে?’
তিনি বলেন, ‘অনেক সময় দেখা যায় টুথ জার্মই নেই। দাঁত পড়ে গেছে কিন্তু নিচে আর কোনও দাঁত নেই। সেক্ষেত্রে আর কিছু করার থাকে না।’
বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটির সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক ও ডেন্টাল সার্জন নাজমুল হক সজিব বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘প্রতিটি দুধদাঁতের নিচে একটি করে স্থায়ী দাঁত থাকে। প্রত্যেক দুধ দাঁত পড়ার নির্দিষ্ট সময় আছে। কোনোটি ছয় বছরে পড়ে, কোনোটা সাত বছরে পড়ে, কোনোটা আট বছরে পড়ে। যে দাঁতটা ছয় বছরে পড়ার কথা, সেটা যদি চার-সাড়ে চার বছরে নষ্ট হয়ে যায়, বা তুলে ফেলতে হয় সেক্ষেত্রে নিচের দাঁতটি উঠতে পারে না।’ তিনি বলেন, ‘যেসব শিশুর গ্রোথ কম তাদের দাঁতও দেরিতে উঠবে। কারো ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই দাঁত উঠবে।’
ডা. আলী আজগর মোড়ল বলেন, ‘এই পরিস্থিতিতে মা-বাবা বা অভিভাবকদের ডেন্টাল সার্জনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।’ সুত্র বাংলা  ট্রিভিউন


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution