• রাত ৩:৪৫ মিনিট সোমবার
  • ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : শরৎকাল
  • ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সোনারগাঁয়ে স্বাস্থ্য সেবায় সুবাতাস সোনারগাঁয়ে দিনদুপুরে অটো রিকশার গ্যারেজে দুর্ধর্ষ চুরি সোনারগাঁয়ে দলিল লিখক এর লাশ উদ্ধার, স্ত্রী আটক জেলা পরিষদ প্রার্থী ফারুক ওমর নিয়ে আওয়ামী-বিএনপিতে বির্তক সোনারগাঁয়ে স্বেচ্ছাসেবীদের ভয়েস অফ ভলান্টিয়ারস অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত বাবা-মাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সিনেমা প্রযোজনা শুরু করলেন অপু বিশ্বাস কাতার বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা দলে মেসির সঙ্গী হবেন কারা? সোনারগাঁয়ে মিনা দিবস উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনা সভা সোনারগাঁয়ে নামায অবস্থায় বৃদ্ধের মৃত্যু আগামীকাল যে সব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে সোনারগাঁয়ে তিনটি ইউনিয়নে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত চোখ উঠলে কি করবেন মামলা জটিলতায় ঝুলে আছে সোনারগাঁ পৌর নির্বাচন উন্নয়ন কাজে স্থবিরতা সোনারগাঁয়ে বিপুল পরিমান মাদকসহ কথিত ছাত্রলীগ নেতাসহ আটক-২ সোনারগাঁয়ে প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুরে যুবকের ১০বছর কারাদন্ড এনসিসির’র ৫৮৮ কোটি টাকার বাজেট ঘোষনা সোনারগাঁয়ে মানসিক প্রতিবন্ধিকে ধর্ষণের চেষ্টা সোনারগাঁয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট মাদ্রাসা ছাত্রের মত্যু সোনারগাঁয়ে চোখে স্প্রে ছিটিয়ে দুই লাখ টাকা ছিনতাই নিজ বাসা থেকে দক্ষিণী অভিনেত্রীর মরদেহ উদ্ধার
স্তন্যপানের জন্য ঘর, ভাববে কি শহর

স্তন্যপানের জন্য ঘর, ভাববে কি শহর

Logo


কখনও পার্লামেন্টের অধিবেশনে, কখনও র‌্যাম্পে। কখনও পত্রিকার প্রচ্ছদে, কখনও আবার প্রচার কর্মসূচিতে। মা শিশুকে স্তন্যপান করাচ্ছেন— দেশ-বিদেশে এ ছবি এখন খুব পরিচিত। তবে অতীতের রাখঢাক হাল্কা হলেও আদত সমস্যাটা সে তিমিরেই রয়েছে। বিদেশের বহু জায়গাতেও এ ব্যাপারে এখনও আপত্তি ওঠে।

মা হওয়ার পরে অসমের বিধায়ক আঙুরলতা ডেকা বিধানসভার কাছে আলাদা ‘ফিডিং রুম’ (স্তন্যপান করানোর ঘর) চেয়ে শিরোনামে এসেছিলেন। আঙুরলতার দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া হলেও সব মা এখনও এমন সুবিধে পান না। কলকাতা শহরে অন্তত সে ছবি বিরল নয়। শুধু কলকাতা কেন, দেশের রাজধানীতেও সব জায়গায় এ সুবিধা পান না মহিলারা। যে কারণে সম্প্রতি দিল্লি হাইকোর্ট এ বিষয়ে সরকারের অবস্থান জানতে চেয়েছে। ২৮ অগস্ট এ নিয়ে শুনানি।

প্রসবের পরে অনেক সময়ে নানা শারীরিক জটিলতা হতে পারে মায়ের। তার জন্য হয়তো ছুটতে হয় স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে। সেই সব চেম্বারে কি এই ব্যবস্থা থাকে? স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ অভিনিবেশ চট্টোপাধ্যায় যেমন বললেন, শোভাবাজারে তাঁর নিজস্ব চেম্বারে ফিডিং রুম আছে। কিন্তু অন্য যে সব ক্লিনিকে তিনি বসেন, সেখানে তেমন বন্দোবস্ত এখনও হয়নি। অভিনিবেশবাবুর কথায়, ‘‘এই কারণে আমরা এই ধরনের রোগিণীকে আগে দেখে ছেড়ে দেওয়ার চেষ্টা করি।’’

শুধু শারীরিক সমস্যা নয়। প্রসব পেরিয়ে বহু মা শিকার হন মানসিক অবসাদের। কাউকে কাউকে যেতে হয় মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছেও। সেই সব ক্লিনিকে কি এ বিষয়টি মাথায় রাখা হয়? মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অনুত্তমা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন, সত্যিই সেটা বিবেচনায় থাকে না। অনুত্তমা বললেন, ‘‘অনেকের সঙ্গে কথা বলে বুঝেছি, ফিডিং রুম থাকবে— এই প্রত্যাশাটাও নেই কোথাও। ফিডিং রুম না থাকাটাই যেন স্বাভাবিক!’’

মা হওয়ার পরে কাজে ফিরেও অনেককে এই অসুবিধের মুখোমুখি হতে হয়। শহরের এক বেসরকারি সংস্থার কর্মী বিপাশা রায় শোনালেন তাঁর অভিজ্ঞতা। তাঁর সংস্থা বহুদিনের পুরনো হলেও ফিডিং রুমের ব্যবস্থা ছিল না। তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে অসুবিধের কথা জানানোর পরে এত দিনে পৃথক ঘরের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। বিপাশা তাঁর মায়ের কাছে শুনেছেন, নব্বইয়ের দশকে মায়ের অফিসে ফিডিং রুম ছিল না। এক সহকর্মীর বাড়ি থেকে রোজ গাড়িতে সন্তান কোলে আয়া চলে আসতেন অফিসের কাছে। সহকর্মী মাঝেমধ্যেই বেরিয়ে আড়াল খুঁজে গাড়ি পার্ক করে শিশুকে খাওয়াতেন। ‘এক্সপ্রেস’ করে মাতৃদুগ্ধ রেখে দেওয়ার চল তখন বিশেষ ছিল না।

শহরের বেশ কিছু আইটি সংস্থায় এখন এই ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু তা বাদে অন্য বেশির ভাগ অফিসেই ফিডিং রুম দুর্লভ। আইটি কর্মী সুতপা চক্রবর্তী জানালেন, শুধু বাচ্চা নিয়ে এলেই ফিডিং রুম দরকার, ব্যাপারটা তো তা নয়। অনেকটা সময় কর্মস্থলে কাটিয়ে রাতের দিকে অফিস থেকেই বাচ্চার জন্য দুধ এক্সপ্রেস করে নিয়ে যেতে পারেন মা। এতে বাচ্চা ও মা, দু’জনেরই সুবিধে হয়। মা সারা দিনের ক্লান্তি ঠেলে একটু বিশ্রাম পান, শিশুও বঞ্চিত হয় না। চিকিৎসকদের দাবি, স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রাখা এক্সপ্রেস করা মাতৃদুগ্ধ তিন-চার ঘণ্টা পর্যন্ত শিশুকে দেওয়া যায়। ফ্রিজে রাখতে পারলে আরও সুবিধে।

অফিস তো হল। হঠাৎ এই সময়েই ভিসা ইন্টারভিউ পড়লে? নতুন মায়েরা কি সে সুবিধে পান? কর্মীদের পাশাপাশি ভিসা আবেদনকারীদের জন্যও পৃথক ফিডিং রুম আছে কলকাতার মার্কিন কনস্যুলেটে, জানাচ্ছেন মার্কিন তথ্যকেন্দ্রের অধিকর্তা জেমি ড্রাগন।  বাইপাসের ধারের পাসপোর্ট অফিসেও পৃথক চাইল্ড কেয়ার রুম আছে।

সচেতনতা যে জাগছে একটু একটু করে, আশার কথা এটাই। শহর আরও একটু সহযোগিতার হাত বাড়ালে হঠাৎ প্রয়োজনে প্রকাশ্য স্থানে স্তন্যপান করাতে গিয়ে ‘অবাঞ্ছিত দৃষ্টির’ শিকার হতে হয় না ভবিষ্যতের মায়েদের। এমন এক মায়ের আবেদন শুনেই কিন্তু নড়ে বসেছে দিল্লি হাইকোর্ট। এ শহর কবে ভাববে?


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution