• রাত ৪:২৫ মিনিট রবিবার
  • ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বসন্তকাল
  • ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
মেঘনা সেতু ফুট ওভারব্রিজের রেলিংয়ের সাপোর্টিং খুটি কেটে নিলো সওজের কর্মীরা সোনারগাঁয়ে স্মার্ট লুকস জেন্টস পার্লার এন্ড স্পা সেন্টার উদ্বোধন সোনারগাঁ সরকারী ডিগ্রী কলেজের হিসাব রক্ষককে পিটিয়ে আহত সোনারগাঁয়ে অবৈধ গ্যাস বোতলজাত করার সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে ১ ব্যক্তির মৃত্যু হঠাৎ ওসমান শিবিরে ধাক্কা সোনারগাঁও পৌরসভায় বৃদ্ধ শ্বশুরকে কুপিয়ে জখম করলো ছেলের বউ আমার দেয়ার কিছু নেই কিন্তু আপনাদের নেয়ার অনেক কিছু আছে..এমপি কায়সার হাসনাত আদমপুর বাজারে হাটার রাস্তা সরু করে অবৈধ দোকান নির্মাণ আনন্দবাজার হাটের ইজারা পেলেন প্যানেল চেয়ারম্যান নবী হোসেন সোনারগাঁয়ে ৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার কাঁচপুরে গ্রেপ্তার এড়াতে ৬ তলা থেকে লাফিয়ে পড়লেন যুবক জামপুরে মাহফুজুর রহমান কালামের উঠান বৈঠক সোনারগাঁয়ের কান্দারগাঁয়ে ১২ বছরে ৪ খুন, আহত-৫০ এলাকা ছাড়া ৫০ পরিবার পিরোজপুর কান্দারগাঁয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষে ১ জনকে কুপিয়ে হত্যা জনগণের দোয়া চেয়ে গণসংযোগ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ আলী হায়দার এসএসসি পরীক্ষার্থী অভিভাবকদের বসার জন্য সোহাগ রনি’র ছাউনী নির্মাণ এসএসসি পরীক্ষার্থী অভিভাবকদের বসার জন্য সোহাগ রনি’র ছাউনী নির্মাণ ১১ই মে তারিখে সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আহত যুবলীগ নেতা নাছিরের খোঁজ নেননি দলীয় নেতারা উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলী হায়দার এর গণসংযোগ
তাহের আলী গং এর বিবৃতি মিথ্যা বানোয়াট উল্লেখ করে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীরের প্রতিবাদ

তাহের আলী গং এর বিবৃতি মিথ্যা বানোয়াট উল্লেখ করে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীরের প্রতিবাদ

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: গত ৫ মার্চ রোজ শুক্রবার নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম অনলাইন নিউজ পোর্টালে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর হোসেনকে জড়িয়ে তাহের আলী গংযের বিবৃর্তি দিয়ে যে সাংবাদিবে ছাপানো হয়, সে সম্পর্কে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর হোসেন প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তার মতে তাহের গং সাংবাদিকদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে সম্পূর্ণ মিথ্যা, কাল্পনিক, ভিত্তিহীন, বানোয়াট, কু-উদ্দেশ্য প্রণোদিত, ষড়যন্ত্রমূলক ও পূর্ব পরিকল্পিত সংবাদ প্রকাশ করেছে।

.
কৃষিবিদ মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনের নিজ গ্রাম বাইশটেকী- চৌরাপাড়া ও আশেপাশের গ্রামগুলোও ব্যাপক ভাবে জমির দালাল/ভূমিদস্যু প্রবণ এলাকা। এসব এলাকায় অনেকগুলো জমির দালাল বা ভূমিদস্যুদের সিন্ডিকেট আছে। প্রতিটি সিন্ডিকেটে অনেকজন সদস্য থাকে যাদের ১০ জনের ৯ জনই লেবাসধারী। যারা একদলভুক্ত হয়ে জমির দালালী করে। আবার কেউ কেউ আছে জমির দালালী করার জন্য লেবাস রাখে। একটি সিন্ডিকেট আবার আরেকটি সিন্ডিকেটের প্রয়োজনে বিনা বিনিময়ে পাশে এসে দাঁড়ায়। এদের দ্বারা তারা জোড় করে জমি দখল করে, বিভিন্ন ভাবে প্রতারণা, ভয়ভীতি দেখিয়ে স্বার্থ উদ্ধার করে, প্রতারণা করে নামজারি করে, ইচ্ছাকৃত ভাবে ঝগড়া সৃষ্টি করে মারামারি করে স্বার্থ উদ্ধার করে। সামাজিক বিচারের নামে প্রহসনমূলক বিচারের মাধ্যমে পূর্বপরিকল্পিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে। এমনকি প্রয়োজনে খুন-জখমের মত পরিকল্পনা করা প্রভৃতি অপকর্ম করে থাকে। এরা মূলত আর কোন কাজ করে না, করলেও নামকা ওয়াস্তে অন্য কাজ করে। জমির দালালী করার গন্ধটুকু পেলেই সেখানে শকুনের মতো বিনা খবরে হাজির হয়ে অবৈধ স্বার্থ উদ্ধারের জন্য সচেষ্ট থাকে।
.
এদের মধ্যে তাহের আলী কোনও রকম কাজ না করে জমির দালালী করে। সে এবং তার ভাই হাশেম ওরফে হাসু দীর্ঘদিন থেকেই কৃষিবিদ মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনের ভাল পজিশনের এবং ভাল মূল্যের জমিজমা ও ঘরবাড়ি দখল করে বিক্রি করার চেষ্টায় লিপ্ত। কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর হোসেনের (৪৯) এক মায়ের এক ছেলে বলে এবং অবিবাহিত বলে তার নিজের কোনো ওয়ারিশ না থাকায় এবং তাকে হত্যা করলে আর অন্য কেউ তার মত যোগ্য হয়ে জমির দালালদের প্রতিহত করার চেষ্টা করতে পারবে না, এমনই মনে করে থাকে ওই অসাধু জমির দালাল সিন্ডিকেট চক্র। তাদের বিভিন্ন সময়ের কথাবার্তায় এমন মনোভাব প্রকাশিত হয়েছে, এলাকায়ও এমন প্রচারণা আছে। এমন মানসে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে তাকে হত্যা ও তার জমিজমা দখল করে বিক্রির পায়তারার অংশ হিসেবে গত ২৬/০২//২০২১ইং রোজ শুক্রবার সকাল প্রায় ১০ ঘটিকার সময় তাকে তার বাড়ির উপর দিয়ে যাওয়ার সময় সুযোগ মত পেয়ে হামলা করে আঘাত করে জখম করে মারাত্মকভাবে আহত করে। পরক্ষণেই তাহের আলী আগে থেকেই বলে রাখায় ভাই-ভাতিজা, আত্মীয় স্বজন এবং অজ্ঞাত পরিচয়ধারী মানুষজন (১০ – ১২ জন) জমির দালালদের নিয়ে তার বাড়ীর টিনের গেট ভেঙ্গে তার বীজধানের গোডাউনে হামলা চালায়, ভাংচুর করে, এরপর কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর হোসেনকে হত্যার উদ্দেশ্যে থাকার ঘরের ভিতর প্রবেশের চেষ্টা করে।
.
কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর এসব জমির দালালদের বিরুদ্ধে বরাবরই সোচ্ছার। তার বিরুদ্ধে তাহের আলী ও অন্যান্য লেবাসধারী দালালদের সাথে জোগসাজস করে, এবং তাদেরকে কৃষিবিদের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলে তাহের আলী কৃষিবিদের বিরুদ্ধে প্রথমে সোনারগাঁ থানায় ১০০ ভাগ মিথ্যা একটি অভিযোগ করে। অভিযোগটি থানা কর্তৃক তদন্ত করার পর সম্পূর্ণ মিথ্যা প্রমানিত হওয়ায়, ঐ অভিযোগ থেকে তাহের আলী একেবারে সরে আসে। কিন্তু তার ষড়যন্ত্রমূলক কার্যক্রম চলতে থাকে। এরপর তাহের আলী গং অন্যান্য লেবাসধারী দালালদের মাধ্যমে পূর্বোক্ত লেবাসধারী দালালদের সাথে সর্ম্পকযুক্ত লোকদের ধর্মীয় অনুভুতিকে ব্যবহার করে ক্ষেপিয়ে তুলতে তাদের কাছে থেকেও স্বাক্ষর সংগ্রহ করে। এরই মধ্যে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর হোসেন সোনারগাঁ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। উপায়ানন্তর না দেখে কৃষিবিদকে মামলা তুলে নিতে চাপ প্রয়োগের কূট-কৌশলের আশ্রয় নেয় তাহের আলী গং, এবং শেষ চেষ্টার অংশ হিসেবে অপ্রাসঙ্গিক ভাবেও মূল্যহীন ভাবে দেখাতে চায় যে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর একজন খারাপ লোক।
.
তাহের আলী গং সংবাদ প্রচার করে যে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর হোসেন একজন ভুমিদস্যু ও চাঁদাবাজ। অথচ কৃষিবিদ এসবের বিরুদ্ধে সব সময়ই বেশ সোচ্চার। গত কয়েকদিন আগেও তাহের আলী ও তার দালালরা জমির সাবেক সীমানা থেকে কৃষিবিদকে না জানিয়ে কৃষিবিদের জমির ৩ ফুট ভিতরে ১৫-২০ জন জমির দালাল নিয়ে সিমেন্টের পাকা খাম গাড়ে এবং এদের নিয়ে কৃষিবিদ একা দেখে হামলার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে এলাকাবাসীর সন্মুখে মাপের পরে ঐ খুটি উঠিয়ে নিতে বাধ্য হয়।
.
কৃষিবিধ জাহাঙ্গীরের শত্রুরা ও অন্যান্য জমির দালালরা নেপথ্যে থেকে তাহের আলীকে টোপ হিসেবে ব্যবহার করে কৃষিবিদের ক্ষতি করার চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে ও নিজেদের অবৈধ স্বার্থ উদ্ধারের চেষ্টা করে যাচ্ছে। এ জন্য কৃষিবিদের শত্রুরা তাহের আলীকে ব্যবহার করে যে কোনো উছিলা তৈরি করে ঝগড়া সৃষ্টি করে, যাতে তাহের আলীর মাধ্যমে কিছু দালাল জোগাড় করে কৃষিবিদের উপর হামলা করে হত্যা করে গণপিটুনিতে কৃষিবিদ মারা গেছে বলে প্রচার করবে বলে অপচেষ্টা চালাচ্ছে এবং পরে তাহের আলী গং বুঝাবে কৃষিবিদকে হত্যায় তাদের কোন হাত নেই। এটা একটা পরিকল্পিত প্লট, যা ভুমিদস্যু এবং কৃষিবিদ জাহাঙ্গীরের শত্রুপক্ষ সাজানোর চেষ্টা করছে।
.
এর কিছুদিন আগে কৃষিবিদ জাহাঙ্গীরের বাড়ির অদূরে তার দাদার গড়া বাড়ী যা বর্তমানে তার চাচাতো ভাইদের ভাগে আছে, তার উত্তর ও দক্ষিণ সীমানা নির্ধারণের মাপের দিনও তার শত্রুরা এবং জমির দালালরা একত্রিত হয়ে তার উপর হামলা চালিয়ে হত্যা করে গণপিটুনিতে কৃষিবিদ মারা গেছে বলে প্রচার চালাবে বলে পরিকল্পনা করেছিল, যা পরে এলাকায় জানাজানি হয়ে যায়। কিন্তু বাড়ি মাপের দিন (সেদিন বৃহস্পতিবার ছিল) কৃষিবিদ জাহাঙ্গীর অন্য জায়গায় থাকায় প্রাণে বেঁচে যায়।
.
অতীতেও কৃষিবিদ জাহাঙ্গীরকে হত্যা করার আরও অনেক অপচেষ্টা চালানো হয়েছিল এবং এখনও সে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তাহের আলী গংদের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নিতে তারা কৃষিবিদ জাহাঙ্গীরকে লাগাতার হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution