• দুপুর ১২:০২ মিনিট বুধবার
  • ৯ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বর্ষাকাল
  • ২৩শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
সোনারগাঁয়ে আরো ২ জনের দেহে করোনা সনাক্ত আগামীকাল বুধবার যে কোন গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক হতে পারে হঠাৎ লকডাউনে ভোগান্তীতে হাজারো যাত্রী সোনারগাঁ আরো ৩ জনের দেহে করোনা সনাক্ত সুস্থ হয়েই অফিস করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মোগরাপাড়া সকল মার্কেট বন্ধ থাকলেও খোলা রয়েছে জালাল টাওয়ার সোনারগাঁয়ে লক ডাউন সফল করতে কঠোর অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন বৈধ গ্যাস সংযোগের দাবিতে পৌরসভার রাস্তা অবরোধ, এসিল্যান্ডের আশ্বাস লেবুর রসের পাঁচ অদ্ভুত ক্ষমতা সোনারগাঁয়ে ৬ জনের নমুনায় ১ জনের দেহে করোনা সনাক্ত সোনারগাঁয়ে চুরির ৩ ঘন্টার মধ্যে চোরাইকৃত মালামালসহ চোর আটক সোনারগাঁয়ে যে সব এলাকায় আগামী ২৪ ঘন্টা গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে জামপুরে হাজী রাসেল আহম্মেদ খোকন এর উদ্যােগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ একজন হাসিবুর রশীদ স্যার ও মননশীল শিক্ষকঃ স্মৃতি কথা সোনারগাঁয়ে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, ২০ লাখ টাকার মালামাল লুট সোনারগাঁয়ের ৩ ফল ব্যবসায়ী সড়ক দূর্ঘটনার নরসিংদীতে নিহত, আহত ২ সোনারগাঁয়ে ৬ জনের দেহে করোনা সনাক্ত বন্দরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নিরাপত্তাকর্মীর মৃত্যু আবু ত্ব-হার খোঁজ মিলেছে ফ্রিজে রাখেন আম-তরমুজ? বারণ করছে বিজ্ঞানই…জানুন
ইয়াবা মামলায় সোনারগাঁ থানার সাবেক ওসি কামরুল কারাগারে

ইয়াবা মামলায় সোনারগাঁ থানার সাবেক ওসি কামরুল কারাগারে

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: ৪৯ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধারের মামলায় সোনারগাঁ থানার ওসি কামরুল ইসলাম এখন কারাগারে। গত ২২ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিন আবেদন করেন কামরুল ইসলাম। পরে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) ওয়াজেদ আলী খোকন জানান, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাওসার আলমের আদালত জামিন নামঞ্জুর করে আদালতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন। ৪৯ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সদর থানার সাবেক ওসি কামরুল ইসলাম বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারে আছেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৭ মার্চ নারায়ণগঞ্জ ডিবি পুলিশ সদর থানার এএসআই মোহাম্মদ সরওয়ার্দীর বাসা থেকে ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ও পাঁচ লাখ টাকা উদ্ধার করে। পরে এ ঘটনায় মামলা হয়। ওই মামলার আসামি পুলিশ সদস্য আসাদুজ্জামান ও মোহাম্মদ সরওয়ার্দী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে বলেন, তৎকালীন এটি তারা নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নির্দেশে করেছেন। তার নির্দেশেই টাকা ও ইয়াবা রেখে আসামিদের ছেড়ে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে গত ২০ ফেব্রুয়ারি বিপুল পরিমাণ মাদক ও টাকাসহ ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া কনস্টেবল আসাদুজ্জামানের জামিন শুনানিকালে মাদক চোরাচালানের সাথে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুল ইসলাম, পিপিএম এর সম্পৃক্ততায় বিস্ময় প্রকাশ করেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্যের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এই মাদক মামলার সাথে ওসি কামরুলের সম্পৃক্ততা থাকা সত্বেও তাকে আসামি না করায় অবাক হন হাইকোর্ট।

পরে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা নারায়ণগঞ্জ সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজিমউদ্দিন আজাদকে তলব করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আগামী ৪ মার্চ স্বশরীরে হাজির হয়ে মামলার তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে ব্যাখ্যা দেওয়ার নির্দেশ দেন আদালত।

এদিকে সিআইডির ওই কর্মকর্তা তদন্ত শেষে ওই ঘটনায় ওসি কামরুলের সম্পৃক্ততা পাননি উল্লেখ করে চার্জশীট থেকে তাকে অব্যাহতি দেন।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution