• রাত ২:৪১ মিনিট রবিবার
  • ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বসন্তকাল
  • ৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
কান্দারগাঁয়ে পারভেজ হত্যার জড়িতেদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন সোনারগাঁয়ে ট্রাকের ধাক্কায় কিশোর নিহত বিনা প্রতিদ্বন্ধিতার নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান এড: সামসুল ইসলাম ভূইয়া’র প্রতিদ্বন্ধিতার ঘোষনা সোনারগাঁয়ে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত বৃদ্ধ গ্রেপ্তার সোনারগাঁয়ে ৫দিন যাবত মোতালিব নামে এক ব্যক্তি নিখোঁজ সোনারগাঁয়ে ৫৫ কোটি টাকার নিষিদ্ধ জাল পুড়িয়ে দিল প্রশাসন ফুটওভার ব্রিজ হকারমুক্ত করতে নিজেই গেলেন এমপি কায়সার ফুটওভার ব্রিজে হকারমুক্ত করতে নিজে গেলেন এমপি কায়সার ফুটওভার ব্রিজে হকারমুক্ত করতে নিজে গেলেন এমপি কায়সার মানসম্মত শিক্ষার পাশাপাশি পারিবারিক ও সামাজিক শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে.. এমপি কায়সার সোনারগাঁয়ে পারভেজ হত্যার প্রধান আসামী পিতা-পুত্র গ্রেপ্তার কাঁচপুরে বিভিন্ন বে-সরকারী ক্লিনিকে ভ্রাম্যমান আদালতেরর অভিযান ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাঁচপুর যুবলীগের সভাপতি মাহবুব পারভেজের গণসংযোগ সোনারগাঁয়ে স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগ ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তির বিরুদ্ধে সনমান্দী তে কালামের জনসংযোগ ও মতবিনিময় সভায় নেতাকর্মীর ঢল এমপি’র হস্তক্ষেপে হকারমুক্ত হলো ফুটওভার ব্রিজ সোনারগাঁয়ে অটোচালক রজ্জব হত্যার প্রধান আসামী আটক সোনারগাঁয়ের কাপড় ব্যবসায়ীর লাশ বুড়িগঙ্গায় উদ্ধার মেঘনা সেতু ফুট ওভারব্রিজের রেলিংয়ের সাপোর্টিং খুটি কেটে নিলো সওজের কর্মীরা সোনারগাঁয়ে স্মার্ট লুকস জেন্টস পার্লার এন্ড স্পা সেন্টার উদ্বোধন
বাংলাদেশে ন্যায়পাল এবং ন্যায়পাল আইন ১৯৮০: একটি সংক্ষিপ্ত আলোচনা: মো: সুলাইমান হাজবি

বাংলাদেশে ন্যায়পাল এবং ন্যায়পাল আইন ১৯৮০: একটি সংক্ষিপ্ত আলোচনা: মো: সুলাইমান হাজবি

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: ন্যায়পাল, সাধারণত সংসদ দ্বারা নিযুক্ত, ব্যবসা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারী বিভাগ বা অন্যান্য পাবলিক সংস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তÍ করেন এবং মধ্যস্থতা বা সুপারিশের মাধ্যমে উত্থাপিত দ্বন্দ্ব বা উদ্বেগগুলি সমাধান করার চেষ্টা করেন। ন্যায়পাল একটি সৎ, দক্ষ কর্মরত বিভাগ প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ন্যায়পালের কাজ হল জনপ্রশাসন এবং আদালতের কার্যক্রম তত্ত্বাবধান করা। ন্যায়পাল, অবৈধ কার্যকলাপ, দায়িত্বে অবহেলা এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ তদন্ত করে থাকেন। বিশেষ করে প্রতারণামূলক অপরাধ, ক্ষমতার অপব্যবহার এবং ন্যায়বিচারবিরোধী কর্মকান্ডের ওপর ন্যায়পাল বিশেষ নজর দিয়ে থাকেন। প্রশাসনিক দায়িত্বশীল কোন কর্মকর্তা এর দ্বারা যদি সংবিধান বা দেশের আইন লঙ্ঘিত হয় ন্যায়পাল উক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবেন। সাধারণভাবে, ন্যায়পালের উদ্দেশ্য হল সরকারি কর্মকর্তাদের কাজে সমতা, সততা এবং স্বচ্ছতা আনয়ন করা এবং বিশেষ করে প্রশাসনের যেকোনো ক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তাদের কার্যকলাপের উপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা। সরকারি কর্মকর্তারা যাতে তাদের দায়িত্ব থেকে বিচ্যুত না হন সেদিকে নজর রাখা। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ৭৭ অনুচ্ছেদে ন্যায়পালের কার্যালয় প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়েছে। যদিও এটি সংবিধানে আছে যে সংসদ, আইন দ্বারা, ন্যায়পাল অফিস প্রতিষ্ঠার জন্য বিধান করতে পারে, তারপরও বাংলাদেশের সংবিধান গঠনের ৫১ বছর পরেও আমাদের দেশে ন্যায়পালের কার্যালয় প্রতিষ্ঠা হয় নি।
সংবিধানের ৭৭ অনুচ্ছেদে ন্যায়পালের কথা বলা হয়েছে; (১) সংসদ, আইন দ্বারা, ন্যায়পালের কার্যালয় প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা করতে পারে। (২) সংসদ আইনের দ্বারা ন্যায়পালকে কোন মন্ত্রণালয়, সরকারী কর্মচারী বা সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষের যে কোন কার্য স¤পর্কে তদন্ত পরিচালনার ক্ষমতাসহ যেরূপ ক্ষমতা কিংবা যেরূপ দায়িত্ব প্রদান করিবেন, ন্যায়পাল সেইরূপ ক্ষমতা প্রয়োগ ও দায়িত্ব পালন করিবেন। (৩) ন্যায়পাল তার কার্য স¤পাদনের বিষয়ে একটি বার্ষিক প্রতিবেদন প্রস্তুত করবেন এবং এই জাতীয় প্রতিবেদন সংসদের সামনে পেশ করা হবে। স্বাধীনতার নয় বছর পর ১৯৮০ সালে ন্যায়পাল আইন গঠিত হয়। সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রশাসনিক অসুবিধা প্রশমিত করার উদ্দেশে এই আইনটি তৈরি করা হয়েছিল। ন্যায়পালের কার্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং তার ক্ষমতা নির্ধারণের জন্য, ন্যায়পাল আইন ১৯৮০ গঠিত হয়। এই আইনের ধারা ৩-এ, ন্যায়পালের কার্যালয় প্রতিষ্ঠার বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে; সংসদের সুপারিশে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ন্যায়পাল নিয়োগ করা হবে, এবং সংসদ, আইনগত বা প্রশাসনিক ক্ষমতা এবং সুস্পষ্ট সততার বিবেচনায় রাষ্ট্রপতির কাছে ন্যায়পাল নিয়োগের জন্য সুপারিশ করবে। ন্যায়পালের কার্যাবলী ন্যায়পাল আইন ১৯৮০-এর ধারা ৬-এ আলোচনা করা হয়েছে। ন্যায়পাল, কোনো ব্যক্তি কর্তৃক ন্যায়পালের কাছে করা কোনো অভিযোগের ভিত্তিতে কোনো মন্ত্রণালয়, একটি সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষ, বা কোনো সরকারি কর্মকর্তা কর্তৃক গৃহীত কোনো পদক্ষেপের তদন্ত করতে পারেন। এই ধারার কোন কিছুই ন্যায়পালকে কোন আদালতের সামনে কোন দেওয়ানী বা ফৌজদারি মামলার, বা আদালতের সদস্য হিসাবে কাজ করা একজন ব্যক্তির দ্বারা স¤পাদিত কার্য বা আচরণ তদন্ত করার জন্য অনুমোদন দেয় নি। ন্যায়পালের তদন্ত পদ্ধতিটি ন্যায়পাল আইন ১৯৮০ এর ধারা ৭ এ আলোচনা করা হয়েছে। তদন্তের জন্য, ন্যায়পালকে এই আইনের বিধান অনুসরণ করতে হবে; ধারা ৭ এ বলা আছে যে তিনি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষ বা পাবলিক অফিসারের কাছে অভিযোগের একটি রিপোর্ট পাঠাবেন অথবা, যে ক্ষেত্রে তিনি তার নিজের গতিতে তদন্ত পরিচালনা করেন, সেক্ষেত্রে তার বিবৃতি। সংবিধিবদ্ধ পাবলিক কর্তৃপক্ষ বা সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তার এই ধরনের অভিযোগ বা বিবৃতিতে তার মতামত দেওয়ার সুযোগ থাকবে। ন্যায়পাল যেকোনো ব্যক্তিদের কাছ থেকে যেকোনো পদ্ধতিতে তথ্য পেতে পারেন এবং তিনি যেভাবে উপযুক্ত মনে করেন সেভাবে তদন্ত কাজ নির্বাহ করতে পারেন।
ন্যায়পাল আইন ১৯৮০-এর ধারা ৮ অনুসারে, তদন্তের উদ্দেশ্যে, ন্যায়পালের কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা অন্য কোনো ব্যক্তির প্রয়োজন হতে পারে, যিনি তদন্তের জন্য তথ্য প্রদান বা প্রাসঙ্গিক নথি উপস্থাপন করতে পারেন। এই ধরনের যেকোন তদন্তের উদ্দেশ্যে, ন্যায়পালের নিকট দেওয়ানী কার্যবিধি, ১৯৮০ অনুসারে দেওয়ানী আদালতের সমস্ত ক্ষমতা থাকবে:
ক) যে কোন ব্যক্তির উপস্থিতি তলব করা এবং শপথ নিয়ে তাকে পরীক্ষা করা;
খ) যেকোন নথি তলব;
গ) হলফনামার প্রমাণের উদ্দেশে;
ঘ) কোনো আদালত বা অফিস থেকে কোনো পাবলিক রেকর্ড বা তার একটি অনুলিপি তলব করা;
ঙ) নথির সাক্ষীদের পরীক্ষার জন্য কমিশন জারি করা।
বাংলাদেশের নিরাপত্তা বা প্রতিরক্ষা বা আন্তর্জাতিক স¤পর্কের ক্ষতি করতে পারে, বা অপরাধের তদন্ত বা সনাক্তকরণ বা প্রকাশের সাথে জড়িত হতে পারে এমন কোনো তথ্য বা এ জাতীয় কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে বা এমন কোনো নথি উপস্থাপনের জন্য কোনো ব্যক্তিকে আদেশ প্রদান করা যাবে না। ন্যায়পাল আইন, ১৯৮০-এর অধীনে তদন্তের উদ্দেশ্যে কোনো ব্যক্তিকে কোনো প্রমাণ দিতে বা এমন কোনো নথি উপস্থাপন করতে বাধ্য করা যাবে না যা তাকে আদালতে কোনো কার্যক্রমে দিতে বা উপস্থাপন করতে বাধ্য করা যায় না।
ন্যায়পাল আইন ১৯৮০ এর ধারা ৯ ন্যায়পালের রিপোর্ট স¤পর্কে কথা বলে। এতে বলা হয়েছে, যদি কোনো তদন্তের পর ন্যায়পালের কাছে এটি প্রতীয়মান হয় যে অভিযোগকারী বা অন্য কোনো ব্যক্তির প্রতি কর্তৃপক্ষের কোনো ধরনের কর্মকান্ডের দ্বারা অসদাচরণের ফলে অবিচার করা হয়েছে, তাহলে ন্যায়পাল লিখিতভাবে একটি রিপোর্ট এর মাধ্যমে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ এর নিকট যথাসময়ের মধ্যে সুপারিশ করবেন। উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ রিপোর্টে উল্লিখিত সময়ের মেয়াদ শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যে রিপোর্ট মেনে গৃহীত পদক্ষেপের বিষয়ে ন্যায়পালকে অবহিত করবেন। যদি, কোনো তদন্তের পর, ন্যায়পালের কাছে মনে হয় যে কর্তৃপক্ষের কোনো ধরনের কর্মকান্ডের ফলে কোনো ব্যক্তির প্রতি অযথা অনুগ্রহ দেখানো হয়েছে বা কোনো ব্যক্তিকে প্রদত্ত অযাচিত ব্যক্তিগত সুবিধা প্রদান করা হয়েছে এবং যদি এটি প্রমাণিত হয় তাহলে তিনি লিখিতভাবে প্রাসঙ্গিক নথি, উপকরণ এবং অন্যান্য প্রমাণ সহ একটি রিপোর্ট প্রস্তুত করবেন এবং উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের নিকট প্রদান করবেন। এবং ন্যায়পাল উপযুক্ত বলে মনে করলে উক্ত ঘটনার আইনি, বিভাগীয় বা শাস্তিমূলক পদক্ষেপের সুপারিশ করবেন। উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ প্রতিবেদনটি পরীক্ষা করবে এবং প্রতিবেদন প্রাপ্তির এক মাসের মধ্যে ন্যায়পালকে তার রিপোর্ট এর ভিত্তিতে গৃহীত বা নেওয়ার প্রস্তাবিত পদক্ষেপ স¤পর্কে অবহিত করবে। ন্যায়পাল যদি গৃহীত পদক্ষেপে সন্তুষ্ট হন বা নেওয়ার প্রস্তাব করেন, তবে তিনি মামলাটি বন্ধ করবেন, তবে যেখানে তিনি সন্তুষ্ট না হন তাহলে তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে একটি বিশেষ প্রতিবেদন দিতে পারেন। ন্যায়পাল তার কার্য স¤পাদনের বিষয়ে একটি বার্ষিক প্রতিবেদন প্রস্তুত করবেন এবং রাষ্ট্রপতির কাছে পেশ করবে, যিনি এটিকে সংসদের সামনে একটি ব্যাখ্যামূলক স্মারকলিপি সহ উপস্থাপন করবেন। যদি, কোন তদন্তের সময়, ন্যায়পাল কোন আইনে কোন ত্রুটি খুঁজে পান; তিনি এই ধরনের ত্রুটি সরকারের কাছে রিপোর্ট করতে পারেন এবং আইনের এমন সংস্কারের সুপারিশ করতে পারেন যা তার মতে এই ত্রুটি দূর করবে। ন্যায়পাল আইন ১৯৮০ এর ১১ ধারা যেকোন স্থানে প্রবেশ করার জন্য ন্যায়পালের ক্ষমতা স¤পর্কে কথা বলে। এতে বলা হয়েছে, এই আইনের অধীনে তদন্তের উদ্দেশ্যে, ন্যায়পাল যেকোন প্রাঙ্গনে প্রবেশ করতে এবং পরিদর্শন করতে পারেন এবং প্রয়োজনীয় বই বা নথিপত্র অনুসন্ধান ও জব্দ করতে পারেন। ফৌজদারি কার্যবিধি, ১৮৯৮ এর ধারা ১০২ এবং ১০৩ এর বিধানগুলি, যতদূর সম্ভব, এই ধরনের প্রবেশ, পরিদর্শন, অনুসন্ধান এবং জব্দ করার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। ফৌজদারি কার্যবিধির ১০২ এবং ১০৩ ধারা, ১৮৯৮ সাক্ষীদের উপস্থিতিতে যথাক্রমে অনুসন্ধান এবং তল্লাশি করার ক্ষমতা নিয়ে আলোচনা করে; ধারা ১০২ এবং ১০৩ বলে যে, এ অধ্যায় অনুসারে যদি তল্লাশি বা পরিদর্শনযোগ্য কোন স্থান আবদ্ধ থাকে, তাহলে ঐ স্থানে বসবাসকারী বা ঐ স্থানের দায়িত্বপ্রাপ্ত যে কোন ব্যক্তি, ওয়ারেন্ট কার্যকরকারী অফিসার বা অন্য কোন ব্যক্তি দাবী করলে এবং ওয়ারেন্ট দেখালে উক্ত স্থানে তাকে অবাধে প্রবেশ করতে দেবেন এবং সেখানে তল্লাশির জন্য সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা দিবেন। যদি ঐরূপে উক্ত স্থানে প্রবেশ করা না যায়, তবে ওয়ারেন্ট কার্যকরকারী উক্ত অফিসার বা ওয়ারেন্ট প্রয়োগকারী অন্য ব্যক্তি এই কার্যবিধির ধারা ৪৮ এর বর্ণিত পদ্ধতি অনুসারে অগ্রসর হতে পারেন। ঐ স্থানের বা তার আশেপাশের কোন ব্যক্তি যে বস্তুর জন্য তল্লাশি করতে হবে সেরূপ কোন বস্তু তার দেহে লুকিয়ে রেখেছে বলে যদি যথাযথভাবে সন্দেহ হয়, তবে ঐ ব্যক্তির দেহ তল্লাশি করা যেতে পারে। উক্ত ব্যক্তি একজন স্ত্রীলোক হলে ধারা-৫২ এর নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে হবে।
ধারা ১০৩ এই অধ্যায় অনুসারে কোন একটি তল্লাশি করার পূর্বে তল্লাশি করতে উদ্যত অফিসার বা অন্য কোন ব্যক্তি, উক্ত স্থান যে এলাকায় অবস্থিত ঐ এলাকার দুই বা ততোধিক নিরপেক্ষ এবং সম্রান্ত অধিবাসীকে তল্লাশি হাজির থাকতে ও এর সাক্ষী হতে আহ্বান জানাবেন এবং এরূপ করার জন্য তাদেরকে বা তাদের যে কোন একজনের প্রতি লিখিত আদেশ জারি করতে পারবেন। ঐরূপ ব্যক্তিগণের উপস্থিতিতে তল্লাশি করতে হবে এবং উক্ত অফিসার বা অন্য ব্যক্তি তল্লাশি সময় আটক সমস্ত জিনিস ও যে যে স্থানে সেগুলো পাওয়া গিয়েছে তার একটি তালিকা প্রস্তুত করবেন এবং তা উক্ত সাক্ষীগণ কর্তৃক স্বাক্ষরিত হবে; কিন্তু আদালত যদি বিশেষভাবে সমন দিয়ে তলব না করেন, তাহলে এই ধারা অনুসারে পরিচালিত তল্লাশি প্রত্যক্ষকারী কোন ব্যক্তিকে উক্ত তরাশির সাক্ষী হিসাবে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেয়া যাবে না। তল্লাশিকৃত স্থানের দখলকার বা তার পক্ষের কোন ব্যক্তিকে, প্রত্যেক ক্ষেত্রে তল্লাশি চলার সময়ে উপস্থিত থাকতে দিতে হবে এবং উক্ত দখলকারী ব্যক্তি বা তার প্রতিনিধি অনুরোধ করলে তাকে এ ধারা অনুসারে প্রণীত ও উক্ত সাক্ষীগণের স্বাক্ষরিত তালিকার একটি অনুলিপি প্রদান করতে হবে। যখন ধারা-১০২ (৩) এর অধীন কোন ব্যক্তির দেহ তল্লাশি করা হয়, তখন যে সমস্ত জিনিসের দখল গ্রহণ করা হল তার একটি তালিকা প্রস্তুত করতে হবে এবং এরূপ ব্যক্তি অনুরোধ করলে তাকে ঐ তালিকার একটি অনুলিপি দিতে হবে। লিখিত আদেশ দ্বারা আহ্বান জানানো সত্ত্বেও যে ব্যক্তি যুক্তিসঙ্গত কারণ ব্যতীত এ ধারা অনুসারে পরিচালিত কোন তল্লাশিতে উপস্থিত হতে ও সাক্ষী হতে অস্বীকার বা অবহেলা করেন, তিনি দন্ডবিধি (১৮৬০ সালের ৪৫নং আইন) এর ধারা-১৮৭ এ বর্ণিত অপরাধ করেছেন মর্মে পরিগণিত হবে।
ন্যায়পাল হল প্রশাসন এর প্রহরী এবং ন্যায়বিচার এর রক্ষক। ইতিহাসে বিশ্বের অনেক দেশ ন্যায়পাল প্রতিষ্ঠা করেছে এবং সেই অফিস পক্ষপাতমূলক নয়, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, ডেনমার্ক, নরওয়ে, নিউজিল্যান্ড, যুক্তরাজ্যের মতো দেশে ন্যায়পালের কার্যালয় রয়েছে। যেহেতু ন্যায়পাল স্বতঃপ্রণোদিত হিসাবে সরকারী কর্মচারীর যে কোন কাজ তদন্ত করতে পারে। সুইডেনে এটি গ্রহণ করার পর প্রায় ২০% অভিযোগ প্রাথমিকভাবে নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। আইনে প্রদত্ত যুক্তিসঙ্গত সীমাবদ্ধতা ব্যতীত কর্মকর্তারা সর্বদা ন্যায়পালের কাছে দায়বদ্ধ। বাংলাদেশে আমাদের ন্যায়পাল আইন ১৯৮০ আছে, আমাদের সংবিধানেই ন্যায়পালের কার্যালয় করার বিধান রয়েছে, কিন্তু তা এখনও কার্যকর হয়নি। রাজনৈতিক অগ্রাধিকার, আমলাতান্ত্রিক বাধা এবং সম্পদের সীমাবদ্ধতা ইত্যাদি বিষয়গুলো ন্যায়পাল এর অফিস প্রতিষ্ঠায় প্রধান অন্তরায়। আইন ১৯৮০-এর ১ম ধারায় বলা হয়েছে যে সরকার যে তারিখে সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা নিয়োগ করতে পারে সেই তারিখে এটি কার্যকর হবে। ২০০২ সনে সরকারি গেজেট এর প্রজ্ঞাপন দ্বারা এই আইন কার্যকর করা হয়েছে কিন্তু এখনো ন্যায়পালের অফিস প্রতিষ্ঠা করা হয় নি। ন্যায়পালের অফিসের নিজস্ব যোগ্যতা আছে, কিন্তু প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব না হলে সব আইনই অকেজো হয়ে যায়। আর অফিস প্রতিষ্ঠা না করাও সংবিধানের লঙ্ঘন। অবশ্যই, ন্যায়পাল আইন ১৯৮০ প্রশাসনিক অসন্তোষ প্রশমিত করতে প্রভাবিত করবে, তাই জনগণের মধ্যে প্রশাসনিক অসন্তোষ প্রশমিত করার জন্য ন্যায়পালের কার্যালয় অবশ্যই প্রতিষ্ঠা করতে হবে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution