• রাত ১০:২০ মিনিট রবিবার
  • ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বর্ষাকাল
  • ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনের রূহের মাগফেরাত কামনা সোহাগ রনি’র দোয়া মাহফিল সোনারগাঁয়ে শিশু ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনায় যুবক গ্রেপ্তার সোনারগাঁয়ে ২৪ জনের মধ্যে ২৪ জনের করোনা পজেটিভ, মৃত্যু ১ করোনামুক্ত হয়েও ধকল বয়ে বেড়াচ্ছেন তারা ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি? মোগরাপাড়া চৌরাস্তায় বেড়েছে গাড়ি ও সাধারণ মানুষের আনাগোনা সোনারগাঁয়ে ১০ জনকে ৮ হাজার জরিমানা, ৮টি ইজিবাইক জব্দ মোশারফ হোসেনের মৃতুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শোক সরকারের দেয়া লকডাউন মানার বালাই নেই বারদী বাজারে মোশারফ হোসেনের জানাযা শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সোনারগাঁয়ে লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেনের মৃত্যুতে সোনারগাঁ থানা বিএনপির শোক মোশারফ হোসেনের মৃত্যুতে ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল হকের শোক সোনারগাঁয়ে আজও নমুনার তুলনায় শতভাগ করোনা আক্রান্ত, মৃত্যু ১ আগামীকাল শুক্রবার বাদ জুম্মা মোগরাপাড়া হাই স্কুলে মোশারফ হোসেনের জানাযা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেনের মৃত্যুতে এমপি খোকার শোক মোশারফ হোসেনের মৃত্যুতে যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু’র শোক মোশারফ হোসেনের মৃত্যুতে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহবায়ক ইঞ্জি: মাসুমের শোক উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনের ইন্তেকাল সোনারগাঁয়ে জমে উঠেছে কোরবানী মাংসের হাট
সোনারগাঁয়ে বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতা, ভোগান্তীতে সাধারণ মানুষ

সোনারগাঁয়ে বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতা, ভোগান্তীতে সাধারণ মানুষ

Logo


নিউজ সোনারগাঁ২৪ডটকম:

কয়েক দিনের হালকা ও ভারী বর্ষনে সোনারগাঁ উপজেলায় বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। অপরিকল্পিত নগরায়ন, নতুন বাড়ীঘর ও শিল্প কারখানা নির্মান করার ফলে পুকুর, জলাশয়, খাল ও ছোট নদীগুলো দখল করে ভরাট করার কারণে বৃষ্টির পানি সরতে না পেয়ে এ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে চরম ভোগান্তীতে পড়েছে সোনারগাঁবাসী।

জানাগেছে, সমুদ্রে সৃষ্টি লঘু চাপের কারণে গত কয়েকদিন ধরে হালকা, মাঝারী ও ভারী বর্ষন হচ্ছে। এ বর্ষনে সোনারগাঁ উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির পানি সরতে না পেরে পুকুর ও জলাশয়গুলো ভরে বাড়ীঘর রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। অনেক স্থানে কৃত্রিম বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। এতে চরম ভোগান্তীতে পড়েছে এসব এলাকার লোকজন। অপরিকল্পিত নগরায়ন কৃষি জমি, খাল বিল, নদীনালা বালু দিয়ে ভরাট করে নতুন আবাসন নির্মান, শিল্পকারখানা তৈরী করার ফলে ছোট ছোট খাল ও নদীগুলো দখল করে ভরাট করার ফলে পানি সরতে না পেরে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া সোনারগাঁ উপজেলা ব্যস্ততম সড়কগুলোতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারণে বৃষ্টির পানি সরতে না পেরে রাস্তাঘাট ও বাড়ীঘরগুলো তলিয়ে গেছে। বিশেষ করে শিল্পাঞ্চল কাঁচপুর, পিরোজপুর ইউনিয়ন ও পৌরবাসীকে সবচে বেশী দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরে জমিনে কাঁচপুর, পিরোজপুর ও পৌরসভার ঘনবসতিপূর্ন বিভিন্ন এলাকার ঘুরে দেখা গেছে কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে বাড়ীর আশপাশের পুকুর ও জলাশয়গুলো ভরে গিয়ে পানি বাড়ীতে হাটু সমান পানি জমে গেছে। সেই পানি আবার অনেকের বসত ঘরেও প্রবেশ করেছে। এ কারণে অনেকে ঘরবাড়ী থেকে বেরুতে পারছেনা ঠিক মতো রান্না করতে পারছেনা আবার অনেকে এলাকায় বিশুদ্ধ পানিরও অভাব দেখা দিয়েছে। এছাড়া গৃহপালিত গরু, ছাগর, হাস ও মুরগীগুলোও রাখতে হচ্ছে কোন উচু জায়গায়।

এ ব্যাপারে পৌরসভার চিলারবাগ গ্রামের হুমায়ন প্রধান জানান, পরিকল্পনা ছাড়া পুকুর ও জলাশয়গুলো ভরাট করার কারণে বৃষ্টির পানি সরতে না পেরে পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। এছাড়া পৌরসভার প্রধান সড়কে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় রাস্তাঘাটগুলো ডুবে গেছে।

এ ব্যাপারে ড. নুরে আলম জানান, জনগনের সচেতনায় অভাব ও প্রশাসনের কোন তদারকি না থাকার কারণে মানুষ যে যার ইচ্ছা মতো খাল ও নদীগুলো দখল করে শিল্প-কারখানা তৈরী করছে। পুকুর ও জলাশয়গুলো ভরাট করে নতুন বাড়ীঘর ও আবাসন তৈরী করছে এতে করে বৃষ্টির পানি সরতে পারছেনা। এক দেখা যেত সময় যতই বৃষ্টি হতো সে পানিগুলো পুকুর জলাশয় কিংবা খাল হয়ে নদীতে চলে যেত কিন্তু এখন সোনারগাঁয়ের অনেক বড় বড় খালগুলো ব্যক্তির দখলে চলে গেছে। সেখানে শিল্প কারখানা ও আবাসন নির্মান করেছে ফলে যত দিন যাচ্ছে সমস্যা ততই ঘনিভুত হচ্ছে। এ থেকে সমস্যা থেকে পরিত্রান পেতে দখল হওয়া খাল ও নদীগুলো দখলমুক্ত করতে হবে। জনবসিতপূন এলাকায় ড্রেনেজের ব্যবস্থা করতে হবে। যেসব এলাকায় ড্রেনেজ ব্যবস্থা আছে সেগুলোকে পরিস্কারের ব্যবস্থা করতে হবে। নতুন কোন পুকুর জলাশয় ভরাটের ক্ষেত্রে প্রশাসের হস্তক্ষেপ থাকতে হবে ও খালবিলগুলো যাতে নতুন করে দখল না হয় সেদিকে প্রশাসনকে লক্ষ্য রাখতে হবে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution