• ভোর ৫:২৫ মিনিট রবিবার
  • ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : বসন্তকাল
  • ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
মেঘনা সেতু ফুট ওভারব্রিজের রেলিংয়ের সাপোর্টিং খুটি কেটে নিলো সওজের কর্মীরা সোনারগাঁয়ে স্মার্ট লুকস জেন্টস পার্লার এন্ড স্পা সেন্টার উদ্বোধন সোনারগাঁ সরকারী ডিগ্রী কলেজের হিসাব রক্ষককে পিটিয়ে আহত সোনারগাঁয়ে অবৈধ গ্যাস বোতলজাত করার সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে ১ ব্যক্তির মৃত্যু হঠাৎ ওসমান শিবিরে ধাক্কা সোনারগাঁও পৌরসভায় বৃদ্ধ শ্বশুরকে কুপিয়ে জখম করলো ছেলের বউ আমার দেয়ার কিছু নেই কিন্তু আপনাদের নেয়ার অনেক কিছু আছে..এমপি কায়সার হাসনাত আদমপুর বাজারে হাটার রাস্তা সরু করে অবৈধ দোকান নির্মাণ আনন্দবাজার হাটের ইজারা পেলেন প্যানেল চেয়ারম্যান নবী হোসেন সোনারগাঁয়ে ৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার কাঁচপুরে গ্রেপ্তার এড়াতে ৬ তলা থেকে লাফিয়ে পড়লেন যুবক জামপুরে মাহফুজুর রহমান কালামের উঠান বৈঠক সোনারগাঁয়ের কান্দারগাঁয়ে ১২ বছরে ৪ খুন, আহত-৫০ এলাকা ছাড়া ৫০ পরিবার পিরোজপুর কান্দারগাঁয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষে ১ জনকে কুপিয়ে হত্যা জনগণের দোয়া চেয়ে গণসংযোগ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ আলী হায়দার এসএসসি পরীক্ষার্থী অভিভাবকদের বসার জন্য সোহাগ রনি’র ছাউনী নির্মাণ এসএসসি পরীক্ষার্থী অভিভাবকদের বসার জন্য সোহাগ রনি’র ছাউনী নির্মাণ ১১ই মে তারিখে সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আহত যুবলীগ নেতা নাছিরের খোঁজ নেননি দলীয় নেতারা উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলী হায়দার এর গণসংযোগ
সোনারগাঁয়ে লক ডাউন কী উঠে গেছে?.. রবিউল হুসাইন

সোনারগাঁয়ে লক ডাউন কী উঠে গেছে?.. রবিউল হুসাইন

Logo


সারা দেশে এখন একটাই আতংক করোনা ভাইরাস।এ আতংক থেকে সোনারগাঁবাসীও মুক্ত নয়। দিন যত যাচ্ছে হুহু করে সোনারগাঁয়ে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। সরকারী হিসেবে সোনারগাঁয়ে মোট ২৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ইতি মধ্যে মারা গেছেন ২জন। কিন্তু এতে কারো কোন মাথা ব্যাথা নেই। সবাই যে যার মতো করে বাইরে ঘুরাফেরা করছেন, আড্ডা দিচ্ছেন করোনাকে পাত্তাই দিচ্ছেন না। করোনা সংক্রমন থেকে রক্ষা পেতে সরকার ইতিমধ্যে যেসকল বিধি নিষেধ আরোপ করেছেন সেগুলো অমান্য করার ক্ষেত্রে সোনারগাঁ উপজেলা মনে হয় এক নম্বরে রয়েছে। কেননা রাস্তায় নামলেই চোখে পড়ে সোনারগাঁয়ের মানুষ করোনার বিধি নিষেধকে বৃদ্ধঙ্গুলি দেখিয়ে কিভাবে অবাঁধে চলাফেরা করছেন।

বিশেষ করে সোনারগাঁয়ের ব্যস্ততম বানিজ্যিক এলাকা মোগরাপাড়া চৌরাস্তার অবস্থা খুবই ভয়াবহ। সরকার যেখানে শর্ত সাপেক্ষে ঔষধ ও নিত্যপন্যের দোকানগুলো খোলা রাখার কথা বলেছেন সেখানে চৌরাস্তায় ফার্নিচার, হার্ডওয়ার, কসমেটিক্স, জুতা, সেলুন, স্বর্নের দোকান, টিভি ফ্রিজের দোকান, মোবাইল মার্কেট, সিমেন্টের দোকানসহ প্রায় সব দোকানই খোলা রয়েছে। এসব দোকানে ক্রেতারা করোনা বিধি না মেনে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন এতে সোনারগাঁয়ে করোনা ঝুঁকি চরম আকার ধারন করছে।

এমন পরিস্থিতিতে চৌরাস্তা এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের জন্য প্রশাসনের কোন সক্রিয় ভূমিকা দেখা যায়নি। হয়তো প্রশাসন কাজ করতে করতে এখন অনেকটাই ক্লান্ত পরিশ্রান্ত না হয় নিময় ভঙ্গকারীদের উপর ত্যক্ত বিরক্ত। প্রকাশ্য দিবালোকে লক ডাউন ভেঙ্গে যেভাবে দোকানপাট খোলা হচ্ছে তাতে সোনারগাঁবাসীর জন্য সামনে যে মহাবিপদ অপেক্ষা করছে তা নিশ্চিত ভাবেই বলা যায়।
ব্যাবসায়ীরা ধীরে ধীরে দোকানপাট খুলছেন প্রশাসন কিছুই বলছে না সুতরাং সাধারণ মানুষও এ সুযোগে প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে মার্কেটমুখী হচ্ছেন। চৌরাস্তা এলাকাসহ উপজেলার প্রায় প্রতিটি মার্কেটের একই চিত্র। কিছু কিছু ক্ষেত্রে দোকানের একটি সাটার খুলে দোকানী বসে থাকেন ক্রেতার আশায় এভাবেও অনেক দোকান খোলা রাখা হচ্ছে। সরকার একদিকে লক ডাউন ঘোষনা করে বসে আছেন অপরদিকে সবকিছুই খোলা হচ্ছে তাহলে এমন লক ডাউনের প্রয়োজন কী? সোনারগাঁয়ের কথা যদি বলি সোনারগাঁয়ে লক ডাউন পালনের কোন  বালাই নেই । অবস্থা দেখে মনে হয় সোনারগাঁ থেকে লক ডাউন বুঝি তুলে দেয়া হয়েছে।

অনেকেই বলছেন পেটের দায়ে বাইরে বের হতে হয়। আসলে পরিসংখ্যান করলে বুঝা যেত এ পরিস্থিতিতে কত শতাংশ লোক পেটের দায়ে বের হচ্ছেন আর কত শতাংশ লোক অযথা বের হচ্ছেন। একটা শ্রেণিকে পেটের দায়ে বাইরে বের হতে হচ্ছে এটা অস্বীকার করার কিছু নেই কিন্তু অনেকেই বের হচ্ছেন অনর্থক তাদের বেলায় আমরা কি বলব? সোনারগাঁবাসীর এখনো শুভ বৃদ্ধির উদয় হয়নি। প্রতিদিন যেভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তাতে বিপদ প্রত্যেকের সন্নিকটে। এখনো সময় আছে প্রত্যেকে সচেতন হোন। অল্প কিছুদিন বাড়িতে অবস্থান করে যদি সবাই ভাল ও সুস্থ থাকতে পারি তাতে এ সাময়িক কষ্টটা সকলেরই মেনে নেয়া উচিত।
মনে রাখবেন অন্ধকারের পরেই আলোর হাতছানি। সুতরাং প্রত্যেকেই সচেতন হই, ঘরে অবস্থান করি, নিজে বাঁচি, সমাজ ও দেশকে বাঁচাই।

লেখকঃ সম্পাদক ও প্রকাশক, চারদিক


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution