• ভোর ৫:৩৭ মিনিট মঙ্গলবার
  • ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  • ঋতু : হেমন্তকাল
  • ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
এই মাত্র পাওয়া খবর :
আজ কি চমক দেখাবে পারবে ব্রাজিল? মাদক মামলায় ফেঁসে যাচ্ছে না.গঞ্জের ৪ পুলিশ সদস্য ইউনিয়ন শ্রমিক দলের সেক্রেটারী সহ বিএনপি ৪ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার দলিল লিখক মোশারফ এর হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন সোনারগাঁয়ে এক সঙ্গে তিন পুত্র সন্তানের জম্ম প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান মানোন্নয়নের লক্ষ্যে সোনারগাঁয়ে শিক্ষকদের মাসিক সমন্বয় সভা নদী খনন করে নৌ-জেটি নির্মাণ ও আনন্দবাজারের নিম্ন অংশ ভরাটে চেয়ারম্যানের অভিনন্দন সোনারগাঁয়ে চেয়ারম্যানের পুত্রসহ দুইজন ইয়াবাসহ গ্রেফতার কাঁচপুর থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধ নিখোঁজ সোনারগাঁয়ে বিশেষ অভিযানে আরো ৪ জন গ্রেপ্তার সাংবাদিক পরিমল বিশ্বাস এর মায়ের পরলোক গমন নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারে থানা বিএনপির নিন্দা সোনারগাঁয়ে ৬ বিএনপির নেতাকর্মী গ্রেপ্তার বিজয় দিবস উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রস্তুতি সভা বন্দরে মাছ ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা ॥ আটক-২ নেতাকর্মীদের বাড়িতে পুলিশী তল্লাসীর নিন্দা স্বপনের আগামী ৪ ডিসেম্বর থেকে নারায়ণগঞ্জ থেকে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে নাশকতার মামলায় সোনারগাঁয়ে ৫ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার সোনারগাঁও সাহিত্য নিকেতনের সাবেক সভাপতি মোসলেহ উদ্দিনের ইন্তেকাল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সস্পাদক আব্দুল হাই ভুঁইয়ার স্মরণে আলোচনা সভা
সোনারগাঁয়ে নিয়ম নীতি তোয়াক্কা নেই, যত্রতত্র গড়ে উঠেছে কেজি স্কুল দেড় কিঃ মিটারে ১৬ প্রতিষ্ঠান

সোনারগাঁয়ে নিয়ম নীতি তোয়াক্কা নেই, যত্রতত্র গড়ে উঠেছে কেজি স্কুল দেড় কিঃ মিটারে ১৬ প্রতিষ্ঠান

Logo


নিউজ সোনারগাঁ টুয়েন্টিফোর ডটকম: আশরাফুল আলম, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলা সদরে দিন দিন গণ হারে বেড়েই চলছে ব্যবসা কেন্দ্রিক বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিন্ডার গার্টেন স্কুল। ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে ওঠা এসব কেজি স্কুল গুলো সরকারি শিক্ষানীতিমালার কোন তোয়াক্কা করছেন না। ব্যবসা কেন্দ্রিক এসব প্রতিষ্ঠানগুলোকে শিক্ষানীতিমালার আওতায় আনা উচিত। নতুবা শিক্ষার মান নিম্নমুখী হয়ে পড়বে। উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের তাহেরপুর এলাকায় দেড় কিলোমিটার অভ্যন্তরে রয়েছে সরকারি বেসরকারি মিলে ১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বিদ্যমান শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো হল কোরবানপুর কবরস্থান মাদ্রাসা, মদিনাতুল উলুম মহিলা মাদ্রাসা, কোরবানপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শান্তিনগর দারুল নাজাত মাদ্রাসা, রূপায়ণ মডেল স্কুল, সানবিম ইন্টার ন্যাশনাল স্কুল, চরগোয়ালদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মঙ্গলেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তাহেরপুর সিনিয়র মাদ্রাসা, তাহেরপুর এফদায়ি মাদ্রাসা, তাহেরপুর হাজী লাল মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, চাইল্ড ফেয়ার ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, কান্দাপাড়া ফাতেমাতুজ জোহরা মাদ্রাসা, জমিরুন নেছা মাদ্রাসা, লিটল এনজ্যোলস কিন্ডার গার্টেন ও দুধঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষকদের শিক্ষাগত যোগ্যতা ও লেখাপড়ার মান নিয়ে রয়েছে নানাহ প্রশ্ন। সোনারগাঁ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে ওঠা এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব জায়গা নেই, আয়ের উৎস নেই, খেলার মাঠ নেই, নেই শিক্ষা বিনোদনের জন্য কোন পরিবেশ। এমনকি সরকারি শিক্ষা নীতিমালার কোন বালাই নেই ও মান সম্মত শিক্ষকহীন এসব প্রতিষ্ঠানে পড়–য়া কচিকাচা শিক্ষার্থীদের ওপর বাড়ছে শিশু মনে ধারন ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত বইয়ের চাপ। প্রতিটি কিন্ডার গার্টেন স্কুলই গড়ে উঠেছে প্রকৃত শিক্ষানুরাগী ব্যতিত স্থানীয় পাড়া মহল্লার বৃত্তশালী ব্যক্তিদের সিন্ডিকেটে। যাদের কাছে শিক্ষার মান উপেক্ষিত তাদের অনেকেই আবার গড়ে তুলেছেন একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষকদের শিক্ষাগত যোগ্যতা ও পড়াশোনার মান নিয়ে যেমন প্রশ্ন রয়েছে, তেমনি বিভিন্ন প্রকাশনা কর্তৃক সরবরাহকৃত বই চুক্তিতে গ্রহণ করে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে কোমলমতি এ শিশু শিক্ষার্থীদের ওপর। শুধু পঞ্চম শ্রেণিতে পড়–য়া শিক্ষার্থী ছাড়া নিচের সব শ্রেণিতে তুলে দেয়া হচ্ছে এসব বই। ওই প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো স্কুল প্রধান শিক্ষককে মোটা অংঙ্কের টাকা দিয়ে যাচ্ছেতাই চালিয়ে দিচ্ছে বইগুলো। ফলে সরকারি কারুকুলামের আওতায় পাঠ না শিখে, শিখছে বেশির ভাগ আউট নলেজ।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সোনারগাঁ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাধ্যমিক ও প্রাথমিক মিলে এই পর্যন্ত গড়ে উঠেছে প্রায় ২২২টি কেজি স্কুল। এর মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেজি স্কুল রয়েছে ১৮৫টি। উপজেলা সদর ছাড়াও প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকা সত্ত্বেও পাশাপাশি গড়ে উঠেছে এসব কেজি স্কুল। নিজস্ব ভবন নেই, নিজেদের আয়ের উৎস নেই, সম্পূর্ণ ব্যবসায়ী মনোবৃত্তি নিয়ে গড়ে ওঠা বেশির ভাগ স্কুলে মান সম্মত শিক্ষক শিক্ষিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষানুরাগী সচেতন মহল। আবার অনেক স্কুল গড়ে ওঠার পর রাতারাতি ভাঙ্গনেরও দৃশ্য রয়েছে। এমনকি উপজেলা শিক্ষা অফিসে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম থাকলেও বর্তমানে কোথাও এর অস্তিত্ব নেই।

শিক্ষানুরাগী সচেতন মহলের কাছ থেকে জানা যায়, বেশির ভাগ কেজি স্কুলে পাঠদানরত শিক্ষক শিক্ষিকা পাঠদানে অদক্ষ ও প্রশিক্ষণহীন। তাছাড়া বেশির ভাগ স্কুল গুলোতে খেলার মাঠ ও প্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ নেই। ভাড়ায় চালিত এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষা বিনোদন, সাংস্কৃতি ও ক্রীড়া চর্চার কোন সুযোগ নেই বললেই চলে। শিক্ষাবিদরা মনে করছেন শিক্ষকরা যদি পার্ট টাইম হিসেবে নিযুক্ত হন তাহলে পাঠদানে তাদের পূর্ণাঙ্গ মনযোগ থাকে না। পাঠদান নির্ভর করে মাসিক বেতন ভাতার ওপর। এছাড়া এসব কিন্ডার গার্টেন গুলোতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশিত বইয়ের চেয়ে বেশি প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে নিজেদের স্কুল কর্তৃক পাঠ্য বইকে। একেক স্কুলে একেক প্রকাশনার বই তুলে দিচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে। বইয়ের মূল্য ও মান নিয়ে নানাবিধ প্রশ্ন রয়েছে। অন্য দিকে প্রতিটি শিক্ষার্থীর মসজিদে গিয়ে ধর্মীয় শিক্ষা কোরআন পড়া বন্ধ হয়ে গেছে। যে সময় কোরআন পড়া শিক্ষা করার সময় ঐ সময় চলে প্রতিটি কেজি স্কুলে পাঠদান। যার ফলে ধর্মীয় শিক্ষা একেবারে উপেক্ষিত বললেই চলে। ভারী বইয়ের বোঝা বইতে শিক্ষার্থীদের যেমন কষ্ট হয়, তেমনি পাঠ গ্রহণেও হিমশিম খেতে হয় শিশু শিক্ষার্থীদের। যেখানে দেশীয় বিনোদন সাংস্কৃতিক চর্চা থাকার কথা সেখানে চলছে বিদেশী পাশ্চাত্য সংস্কৃতির বিকাশ। সোনারগাঁ উপজেলায় এই পর্যন্ত প্রায় ১৮৫ টি কেজি স্কুল গড়ে উঠেছে বলে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার দৌলতর রহমান জানান, বেসরকারি ভাবে গড়ে ওঠা এসব কেজি স্কুল গুলো আমাদের নিয়ন্ত্রনের বাইরে। সোনারগাঁয়ে আমি যোগদান করার পর একটি কেজি স্কুলও অনুমোদন পায়নি। প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে কাছাকাছি প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকলেও সেদিকে খেয়াল না করে খুলে বসেছে একই স্থানে একাধিক কিন্ডার গার্টেন স্কুল। ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে ওঠা এসব কেজি স্কুল গুলো সরকারি শিক্ষানীতিমালার কোন তোয়াক্কা করছেন না। ব্যবসা কেন্দ্রিক এসব প্রতিষ্ঠানগুলোকে শিক্ষানীতিমালার আওতায় আনা উচিত। নতুবা শিক্ষার মান নিম্নমুখী হয়ে পড়বে।


Logo

Website Design & Developed By MD Fahim Haque - Web Solution